Please follow forum rules and posting guidelines for protecting your account!

যেভাবে এলো আজকের মিয়ানমার: একটি পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস (1 Viewer)

Welcome to Nirjonmela Desi Forum !

Talk about the things that matter to you!! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today!

Matheus

Member
Joined
Mar 8, 2020
Threads
15
Messages
115
Visit site
Credits
2,016
12-29-22-HomeBanner4-1400x670.jpg


বর্তমান সময়ে প্রতিবেশী যে রাষ্ট্রের দ্বারা বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি চাপের মুখে রয়েছে এবং একইসাথে যে দেশটি অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের জন্য আরও অগণিত সমস্যা তৈরি করবে সেটি মিয়ানমার। লাখো লাখো রোহিঙ্গা অধিবাসীকে নিজ দেশ ত্যাগ করে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য করছে সে দেশের সরকার ও সামরিক বাহিনী। এই সমস্যা আজ নতুন নয়। সেই ‘৭০ এর দশক থেকেই রোহিঙ্গাদের উপর অত্যাচার-নির্যাতন চলছে, চলছে বাংলাদেশের সীমান্তে শরণার্থী হয়ে তাদের অনুপ্রবেশ। আর মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তুরস্কসহ বড় বড় দেশগুলোর তাগাদায় এই উদ্বাস্তু জাতির বাস্তুসংস্থানের একক দায় চেপেছে আজ বাংলাদেশের উপর। চলুন জানা যাক সময়ের সবচেয়ে বড় মূর্তিমান উৎপাত মিয়ানমারের ইতিহাস।
১৯৮৯ সালে দেশটির নাম ইউনিয়ন অব বার্মা থেকে ইউনিয়ন অব মিয়ানমারে পরিবর্তন করা হয়। বার্মা নামটি এসেছে দেশটির সর্ববৃহৎ সম্প্রদায় ‘বামার’ থেকে। নাম থেকেই বোঝা যায় যে সাম্প্রদায়িকতা দেশটির রন্ধ্রে রন্ধে মিশে আছে।

আজকের মিয়ানমার বা পূর্বের বার্মা এককালে একাধিক ছোট ছোট স্বাধীন রাষ্ট্রে বিভক্ত ছিল। ১০৪৪ সালে রাজা অনরথ পাগান নামক রাষ্ট্রের সিংহাসনে বসেন। তিনিই প্রথম ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রাষ্ট্রগুলোকে একত্রিত করে একটি একচ্ছত্র রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেন এবং পাগান প্রদেশটি হয় তার রাজধানী। রাজা অনরথের রাজত্বকালকে স্বর্ণকাল বলা চলে। বৌদ্ধধর্মে অতিমাত্রায় অনুরক্ত এই রাজা শহরজুড়ে অনেক মন্দির ও প্যাগোডা নির্মাণ করেন, শিল্প, সংস্কৃতি ও শিক্ষায় অনেক সমৃদ্ধ হয় এই রাজত্ব। তবে রাজতন্ত্রে বেশিদিন রাজ্য টিকিয়ে রাখাটাও এক অনিশ্চিত ব্যাপার। ত্রয়োদশ শতকের শেষের দিকে পাগান রাজত্ব ভেঙ্গে পড়ে।

একদিক থেকে ‘শন’ ও আরেকদিক থেকে ‘মোঙ্গল’ জাতি পাগান সাম্রাজ্য দখল করে এবং একে ভেঙ্গে পুনরায় ছোট ছোট রাষ্ট্রে পরিণত করে। চতুর্দশ শতকের মাঝামাঝি দেশটি চারটি অঞ্চলে বিভক্ত হয়ে পড়ে- উচ্চ বার্মা (Upper Burma), নিম্ন বার্মা (Lower Burma), শন প্রদেশ ও আরাকান প্রদেশ। এসব প্রদেশের মধ্যে স্বাভাবিকভাবেই যুদ্ধ-বিগ্রহ লেগে থাকতো। ১৬৩৫ সালে রাজা থালুন বিশৃঙ্খল অঞ্চলগুলোর দখল নিয়ে দেশটিকে একক সীমারেখার ভেতর নিয়ে আসেন। তার অধীনে বার্মায় রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা আসে এবং তা দীর্ঘদিন বিরাজ করে। তবে এর পরও যুদ্ধ বিগ্রহ থেমে থাকেনি। পরবর্তী রাজবংশগুলো ক্ষমতার সাথে যুদ্ধেরও উত্তরাধিকারিতা লাভ করে। পরবর্তী সময়ে কংবং রাজবংশের রাজা বোধপায়া ও তার নাতি অলংপায়া সফল শাসক হিসেবে বার্মার ইতিহাসে স্মরিত হন।
তবে নিরবচ্ছিন্ন রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বার্মায় কখনোই বিরাজ করেনি। এরুপ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সুযোগ নিতে দখলবাজ ব্রিটিশরাও ভুল করেনি। ৬০ বছরে ৩টি অ্যাংলো-বার্মিজ যুদ্ধের পরে ১৮৮৬ সালে বার্মাকে ব্রিটিশ শাসিত ভারতের একটি অংশ হিসেবে জুড়ে নেয়া হয়। ব্রিটিশরা তাদের ‘Divide and Rule’ নীতি বার্মা শাসনের ক্ষেত্রেও কাজে লাগায়। বিভিন্ন গোষ্ঠীতে বিভক্ত বার্মার জনগণকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে তারা সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়গুলোর লোকজনকে বেশি করে সামরিক বাহিনী ও স্থানীয় প্রশাসনে নিয়োগ দিতে থাকে। সংখ্যালঘুদের বিড়ম্বনার শুরু সেখান থেকেই। গত শতাব্দীর বিশের দশকে বার্মার সুশীল সমাজ ও বৌদ্ধ ভিক্ষুরা প্রথম ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে। সংসার বিরাগী ভিক্ষুদের রাজনৈতিক কর্মকান্ডে যোগদানের শুরুটাও সম্ভবত তখন থেকেই। ১৯৩৫ সালে রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়নের যোগদানে এই আন্দোলন আরও সক্রিয় ও গতিশীল হয়।

এই সময় অং সান নামে এক তরুণের উত্থান হয়। তিনি ছিলেন আইনের ছাত্র, একই সাথে ছাত্র ইউনিয়নের কার্যকরী কমিটি সদস্য ও ম্যাগাজিন সম্পাদক। পরবর্তী বছরগুলোতে কিছু সফল ছাত্র ধর্মঘট ও প্রাণবন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচির মাধ্যমে অং সান পুরো জাতির সমর্থন অর্জন করেন। ১৯৩৮ সালে তিনি রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করে এক নতুন রাজনৈতিক দলের সাথে যোগ দেন। অং সানকে বার্মিজ জাতীয়তাবাদী প্রথম নেতা বলা যায়। তিনি সমাজতন্ত্রকে বার্মায় চলমান অর্থনৈতিক সমস্যার সমাধান হিসেবে বিবেচনা করতেন। এর মধ্যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে অং সান বুঝলেন বার্মার স্বাধীনতা আদায়ের এটাই মোক্ষম সময়। ২৯ জন সহচরকে নিয়ে অং সান জাপানে গিয়ে সামরিক প্রশিক্ষণ নিলেন। এরা ‘থার্টি কমরেডস’ নামে পরিচিত ছিলেন। জাপানিজরা অং সানকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে তারা ব্রিটিশদের পরজিত করতে সক্ষম হলে তারা বার্মার স্বাধীনতা হস্তান্তর করবে। জাপানিজদের সঙ্গে যোগ দিয়ে অং সান ও তার সহযোগীরা বার্মা আক্রমণ করে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধও করেছেন। কিন্তু ক্রমে অং সান বুঝলেন যে জাপানের প্রতিশ্রুতি শুধুই বুলিসর্বস্ব। তৎক্ষণাৎ তিনি পক্ষ পরিবর্তন করে জাপানকে পরাজিত করার জন্য ব্রিটিশদের সার্বিক সহযোগিতা দেবার চুক্তি করলেন। শর্ত সেই একই থাকলো, বার্মার পূর্ণ স্বাধীনতা। অং সানের পেছনে বার্মাবাসীর প্রবল সমর্থণ ছিল। যদিও কিছু সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কাছে তিনি বিতর্কিত ছিলেন, তবুও তার জনপ্রিয়তায় ভাটা পড়েনি। তিনি নিয়মিত বিভিন্ন সম্প্রদায়ের নেতাদের সাথে সাক্ষাৎ করতেন ও সমগ্র বার্মার অধিবাসীদের মধ্যে একতা স্থাপনের চেষ্টা চালাতেন। নিঃসন্দেহে যেকোনো দেশের স্বাধীনতা অর্জনের প্রাক্কালে জাতীয় ঐক্য সবচেয়ে জরুরী বিষয়।
ব্রিটিশদের প্রশ্রয়ে বার্মার রাজনৈতিক দলগুলো জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে থাকে। অং সানের গঠিত দল এএফপিএফএল (AFPFL) ভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে। বিরোধী দল স, মাও ও তুন এর যুক্তফ্রন্ট এই নির্বাচন বয়কট করে। বিজয়ী দলের প্রধান হিসেবে অং সান বার্মার জন্য নতুন সংবিধান প্রণয়নের কাজ শুরু করেন। কিন্তু নবগঠিত সরকারের সকল সম্ভাবনা ও প্রতিশ্রুতি ধুলিস্যাৎ হয়ে যায় ১৯৪৭ সালের ১৯ জুলাই। এই দিন কার্যকরী পরিষদের একটি অরক্ষিত সভায় অং সানের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দী স-এর একদল মেশিনগানধারী ঢুকে অং সানসহ পরিষদের সাতজন সদস্যকে গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেয়। স ও তার সহকর্মীদের গ্রেফতার করা হয় এবং এদিকে অং সানের ক্যাবিনেটের এক সদস্য ইয়ু ন্যু কে অং সানের শূন্যস্থানে বসানো হয়। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বার্মা শেষমেষ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষিত হয়।
( নেক্সট পর্ব ২ তে)
 

Users who are viewing this thread

Back
Top