What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

MOHAKAAL

Mega Poster
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
2,263
Messages
15,953
Credits
1,447,334
Thermometer
Billiards
Sandwich
Profile Music
French Fries
বাড়ির বাগানে বৌদির সাথে – ০১ - by manasija

যখন দাদার বাড়ি পৌছালাম তখন রাত প্রায় নটা, বৃষ্টিতে পরনের জামাকাপড় ভিজে চপচপ করছে। ঢুকতেই বৌদি বলল,
– 'বাথরুমে জামাকাপড়গুলো ছেড়ে, একটু জল ঢেলে বৃষ্টির জলটা ঝড়িয়ে নাও, নইলে ঠান্ডা লেগে যাবে।'

তাই করলাম। কিন্তু সাথে কিছু আনিনি, পরব কি? দাদার সাইজ আর আমার সাইজেও বেশ পার্থক্য। দাদার জামাকাপড়ও হবে না। অগত্যা একখানা গায়ে দেওয়ার চাদর লুঙ্গির মত করে পরেই কাটানো হবে স্থির হল। এরপর কাল দেখা যাবে। রাতে খাওয়া দাওয়ার পর একটু গল্পগুজব হল। শিক্ষিত বেকার, বাপের হোটেলের তিনবেলার ভাত আর গঞ্জনাই সম্বল। সরকারি চাকরির পরীক্ষা দেই, আর হতাশ হই। আমার যোগ্যতার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ে কাটঅফ। চাকরি খোঁজার জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছি শুনে, দাদাই আসতে বলেছিলেন, ওনার অফিসে কি একটা জায়গা খালি আছে বলে। উনি অভয় দিলেন ওনার হপ্তাখানেক এর জন্য একটু অফিসের কাজেই বাইরে যেতে হবে, সেখান থেকে ফিরেই যাহোক একটা ব্যবস্থা করে দেবেন। এরপর ঘুমোতে চলে গেলাম সবাই, বৃষ্টির রাত তার ওপর সারাদিনের ধকল, একঘুমেই রাত কাবার। এদিকটা একটু শহরের বাইরের দিকে, কাজেই ঠান্ডাটাও একটু বেশী; রাতে কম্বল গায়ে দিয়েছিলাম বিছানা ছাড়তে গিয়ে দেখি, রাতে ঘুমের ঘোরে পরনের চাদর খুলে বেপাত্তা। চোখ কচলাতে কচলাতে পাশের আয়নায় নিজেকে দেখে হতম্ভব, পুরো দাঁড়িয়ে থাকা পুরুষাঙ্গ নিয়ে আড়মোড়া কাঁটাতে কাঁটাতে দাঁড়িয়ে থাকা এক যুবক। নিজেকে এভাবে দেখতে ভালই লাগে। হঠাৎ দেখি দরজাটা একটু ফাঁক হচ্ছে, বৌদি 'ঠাকুরপো, ঠাকুরপো' করে ডাকতে ডাকতে ঢুকছে। আমি তড়াক করে আবার কম্বলের তলায় চলে গেলাম, এক্ষুণি হয়ে গেছিল। রাতে কি দরজা দিতে ভুলে গেছিলাম? সর্বনাশ!

বৌদি দাঁড়িয়ে থেকে দুচারটা হাসিঠাট্টা করলেন, দু চারবার ইয়ার্কি মেরে কম্বলটা টানার চেষ্টাও করলেন। কিন্তু আমি টেনে ধরে বসে আছি। হঠাৎ বৌদি কিছু একটা দেখতে পেয়ে, 'এই যা রান্না বসিয়ে এসেছি যে' বলে মাথায় একটা চাঁটি মেরে মুখ টিপে যেন পালিয়ে গেল। নীচের দিকে তাঁকিয়ে দেখি আমি একদিকটা ধরে আছি, আর অন্যদিকটা বৌদির টানাটানির চক্করে কম্বল কিছুটা,সরে এসেছে। সেদিক দিয়ে আমার অনাবৃত নিম্নাঙ্গের কিছুটা বেরিয়ে এসেছে। কোমরের নীচের দিক দিয়ে ফর্সা উরুর কিছুটা বেরিয়ে পড়েছে, যৌনকেশের কিছুটা আভাও বোঝা যাচ্ছে, আর কিছুটা সরলেই লজ্জাস্থান প্রায় প্রকাশিত হয়ে পড়েছিল। আমি কম্বলের তলায় বসে বসে এই ঠান্ডাতেও ঘামছি। কিছুক্ষণ কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে বসে থেকে,
উঠে চাদরটা ছেড়ে একটা গামছা পরে নিলাম। গামছাটা পড়তে গিয়ে দেখি এটা ছোট গামছা। আমার লজ্জাস্থানগুলোকে ঢাকার চেয়ে বেশী যেন প্রকাশ করে দিচ্ছে। নিতম্বের তলার দিকটা বেরিয়ে পড়েছে। নেহাৎ লিঙ্গবাবাজি ঘুমিয়ে, জেগে দাঁড়িয়ে পড়লে বেরিয়ে যাবে গামছার ফাঁক দিয়ে। কোনোভাবে অ্যাডজাস্ট করে বাথরুমের দিকে যাচ্ছি, হঠাৎ বৌদি এসে বলল তেঁতুল পেড়ে দিতে। বৌদিদের বাড়ির পেছন দিকে অনেকটা ফাঁকা জায়গা জুড়ে আম-জাম-কাঁঠাল-তেঁতুল আরও কত কি গাছ। যখনই আসি কিছু না কিছু গাছের ফল জুটে যায়। বৌদির হাতের তেঁতুল মাখা আমার খুবই প্রিয়। বৌদিরও অনেকদিন নাকি খেতে ইচ্ছা হচ্ছে, অগত্যা…

একখানা লাঠি নিয়ে চললাম দুজনে। গিয়ে দেখি লাঠি দিয়ে ঠিক সুবিধা হবে না গাছে চড়তে হবে। এদিকে যে ঝামেলা যে হয়ে আছে। যে গামছাটা পড়ে আছি, সেটা তো বলেইছি সাইজে একটু ছোটধরনের, ওটা সাধারণত মোছামুছির জন্য ব্যবহার করা হয়, আমি না বুঝে পরে ফেলেছিলাম, পরার পর বুঝেছি, ভেবেছিলাম যা হয়েছে হয়েছে, স্নানটা সেরে নিলেই হল। এত কিছু হিসাবের মধ্যেই ধরিনি। আমি দোনোমোনো করছি দেখে বৌদি আবার একটা ঠাট্টা করে বসল। 'কি হে বীরপুঙ্গব, সাহস হচ্ছে না বুঝি!?' বলেই এমন হিহিহি করে হাসতে শুরু করল যে গায়ে জ্বালা ধরে গেল আমার। আমি যা থাকে কপালে ভেবে, উঠে পড়লাম। কিন্তু উঠে বুঝলাম ঠিক কাজ হয় নি, নিম্নাঙ্গে ঠান্ডা হাওয়ার স্পর্শ পেতেই বুঝলাম, নীচের দিক থেকে দরজা হাট করে খুলে গেছে। যে কেউ আমার নীচে থাকলে এইমুহুর্তে আমার পশ্চাৎদেশ, অন্ডকোষ এবং যে হারে লিঙ্গবাবাজি তার স্বরূপ ধারণ করছেন, সেটাও খুব ভালমত দেখতে পাবে। বৌদিও নিশ্চয়ই দেখতে পেয়েছে। তাঁর রিয়্যাকশন কী তা দেখার খুব ইচ্ছা হতে শুরু করল। আমি আড়চোখে তাঁকিয়ে দেখি বৌদি এক একবার গাছের দিকে আর একবার আমার তলদেশের দিকে তাঁকাচ্ছেন। বুঝতে পারছি, বাঙালী গৃহবধূর সংস্কার আর নিষিদ্ধ আনন্দের মধ্যে ভীষণ লড়াই চলছে। আর অবস্থার অবনতি যাতে না হয়, তাই আমি তাড়াতাড়ি করে প্রয়োজন মত তেঁতুল পেড়ে নামার চেষ্টা করলাম। ওঠার সময় তো উঠে গেছিলাম, নীচে নামার সময় হল আরেক সমস্যা, পা দিয়ে ঠেস দেওয়ার মত উপযুক্ত জায়গা খুঁজে পেলাম না। এদিকে গামছা যে কখন উপরের দিকের একটা ডালে আঁটকে গেছে টের পাইনি। বৌদি তেঁতুল গুলো নীচে রেখে বলল,
– দাঁড়াও আমি ধরছি
বৌদি আমাকে হাত দিয়ে ধরতে গিয়েছিল, কিন্তু অসাবধানতা বশতঃ তার হাত চলে গেল গামছার ভেতর, একেবারে পশ্চাৎদেশ আর অন্ডকোষের মাঝের অঞ্চলে। ফলতঃ বৌদির হাত আমার পুরুষাঙ্গও স্পর্শ করল। এমন অতর্কিত স্পর্শে আমার সারা শরীরে শিহরণ খেলে গেল, আর আমি টাল সামলাতে না পেরে পড়লাম বৌদির ওপরে। এবার পরিস্থিতি এমন দাঁড়াল যে বৌদি নীচে শুয়ে, আমি তার ওপর পড়ে, আমার মুখের সামনে বৌদির নাভিদেশ এবং বৌদির পরনের কাপড় অনেকখানি উপরে উঠে গেছে, এতটাই যে, আমি একমুহুর্তের জন্য বৌদির যৌনকেশ প্রদর্শনে ধন্য হলাম। বৌদি চটজলদি কাপড়খানা ঠিক করে নিলেন আমিও চটপট উঠে পড়লাম। উঠে ঝাড়াঝাড়ি করতে গিয়ে দেখি, পরনের গামছা গাছে ঝুলছে আর আমি সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে দৃঢ় লিঙ্গ বাগিয়ে দাঁড়িয়ে। বৌদি ওইদিকে ঝাড়তে ঝাড়তে বিড়বিড় করছিল,
– কি যে কর না তুমি ঠাকুরপো…
তখনও ওনার চোখে পড়েনি এদিকে যে কী ভীষণ পরিস্থিতি ওনার দৃষ্টি পড়ার অপেক্ষায় অপেক্ষারত।

আমি ভাবলাম এই সুযোগ, তাড়াতাড়ি করে গামছাটা পেড়ে ফেলি। এই ভেবে গাছে উঠতে গিয়ে হল আরেক বিপত্তি। পা পিছলে গেল, আর অন্ডকোষের দিকটায় একটু ঘষে ছাল উঠে গেল। আমি আর পারলাম না, গোল্লাজোড়া আঁকড়ে বসে পড়লাম। বৌদির চোখ এতক্ষণে আমার দিকে পড়েছে। আমাকে সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় দেখে তো প্রথমে বুঝতেই পারল না, কি হয়েছে, কি কর্তব্য। তারপর নিজেকে সামলে এগিয়ে এসে জিজ্ঞেস করল, কি হয়েছে? আমি সব বললাম। আমি ওনার চোখে চোখ মেলাতে পারছিলাম না।
বৌদি যেন হাস্যকৌতুক ভঙ্গিতে বললেন,'বেশ আমি পেড়ে দিচ্ছি'।
– আরে কর কী!? কর কী!?

বলতে বলতে ওপরের দিকে তাঁকিয়ে দৃশ্য দেখে তো আমার চোখ ছানাবড়া। বৌদি শাড়ির নীচটা লুঙ্গির মত ভাঁজ করে কোমড়ে গুঁজে নিয়ে গাছে উঠে, গামছাটাকে পাড়ার চেষ্টা করছে। শাড়ির তলার দিকটা পুরো ফাঁকা হয়ে গেছে। বৌদির শরীরের যা কিছু গোপন কোণাঘুঁপচি রয়েছে, শাড়ির তলা দিয়ে সে সকলই প্রায় দৃশ্যমান। কলাগাছের মত সাদা উড়ু, না কামানো যোনিকেশের বনের মাঝে একটুকরো চেড়া, তা থেকে বের হয়ে আসা গোলাপি রঙ্গের আভা, খাঁজ বরাবর হাল্কা গাঢ় রঙ্গের ত্বক এবং পেছনের দিকে একটি স্বর্গীয় ছিদ্র এবং তাকে ঘিরে একটি গাঁঢ় রঙ্গের বৃত্ত। গামছাটি পেড়ে বৌদির মুখে এক অদ্ভুত যুদ্ধজয়ের হাসি দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু সেটা স্থায়ী হল না। আমার গামছার মত ওনারও শাড়ির কোণা সে খাঁজে আঁটকে গেল। এবং উনিও আমার মত টাল সামলাতে পারলেন না। আমি তাড়াতাড়ি করে ধরতে গেলাম। এবং তারপরই বুঝতে পারলাম ভুল হয়েছে। আমার হাতটিও বৌদির শাড়ির ভেতরে ঢুকে গেছে। আমার মধ্যমার কিছুটা বৌদির পায়ুছিদ্রে এবং বৃদ্ধাঙ্গুলি যোনিতে প্রবেশ করেছে।

বৌদি আমার গলাটা জড়িয়ে 'মাগো' বলে মৃদু শীৎকার দিয়ে উঠল। পরনের শাড়ি গাছে এমন ভাবে আঁটকে গেছে যে আমে ছেড়ে দিলে বৌদি গাছেই ঝুলে থাকবে। কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে দুজনেই দাঁড়িয়ে থাকলাম কিছুক্ষণ। এদিকে আমি অনুভব করছি বৌদির যোনিদেশের আর্দ্রতা আমার কনুই বেয়ে গড়িয়ে মাটিতে পড়ছে। বৌদির আক্ষেপ মিশ্রিত লজ্জাবনত দৃষ্টি আমাকে আরো বেশী করে উত্তেজিত করে দিচ্ছে। অবশেষে স্থির হল বৌদির পরনের কাপড় খানা খুলে ফেলা হবে। অন্যথায় এই অবস্থা থেকে মুক্তির আর কোনো উপায় নেই। আমি তেমনভাবেই ধরে থাকলাম। বৌদি নিজের শাড়িখানা খুলতে শুরু করল। শাড়ি খোলা হয়ে গেলে, শায়ার দড়িতে হাত দিল। দড়ি খুলে শায়াখানা মাথা দিয়ে গলিয়ে নেওয়া হল। এখন বৌদির পড়নে শুধুমাত্র ব্লাউজ, নীচের দিকে একটি সুতোরও কোনো চিহ্ন নেই। একটু আগে যে নিষিদ্ধ সৌন্দর্য আড়াল আবডাল দিয়ে উঁকি দিচ্ছিল, তা যেন এবার প্রকাশ্য দিবালোকে প্রকাশিত হয়ে আহ্বান করতে লাগল,
– 'কে কোথায় আছো? দেখো আমি আজ মুক্ত, দেখো আমায় মন-প্রাণ ভরে দেখো। দেখেই আমাকে নিঃশেষ করে দাও।'
আমার পক্ষে আর নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হল না। আমি বৌদির গোলাপ পাঁপড়ির মত ঠোঁটে আমার ঠোঁটজোড়া ডুবিয়ে দিলাম। বৌদিও সাড়া দিল। মনে হতে লাগল, অতীতের কোনো এক জনশূন্য অরণ্যের মাঝে দুই নগ্ন নরনারী সৃষ্টির আদিমতম ক্রীড়ায় মগ্ন। সময় যেন থমকে গিয়েছে এখানে।

কিছুক্ষণ পর মুক্ত করলাম, অধরদ্বয়কে ধীরে ধীরে নামালাম বৌদিকে। বৌদি পরনের কাপড়খানা বিছিয়ে মাটিতে পদযুগল উন্মুক্ত করে শুয়ে পড়ল। আমি আমার অধরদ্বয়কে বৌদির অপর অধরদ্বয়ে ব্যস্ত করলাম। যোনির লবনাক্ত রসে স্নাত কোঁকড়ানো যোনিকেশগুলোকে ফাঁক করে মুখ ডুবিয়ে দিলাম। বৌদি আরেকবার মৃদু শীৎকার করে উঠলেন। ভগাঙ্কুরটাকে নিয়ে জিভ দিয়ে কগেলতে শুরু করলাম। কখনও চুষে, কখনও চেঁটে। বৌদি আমার মাথাটা চিপে ধরে পাগলের মত করতে শুরু করল। আমি আরো বেশী বেশী করে জিভকে কাজে লাগাতে লাগলাম। এভাবে জানি না কতক্ষণ কেঁটে গেছে, একসময় যোনি থেকে এক রসের ফোয়ারা এসে আমার নাকে মুখ ভিজিয়ে দিল।

বৌদির তৃপ্তি এবং লজ্জামিশ্রিত হাসি দেখে বুঝলাম, জল ছেড়েছে। এবার বৌদি উঠে আমাকে ঠেলে ফেলে দিল, তারপর আমার ওপর শুয়ে আমার ঠোঁটে আবার ঠোঁট ডুবিয়ে দিলেন। কিছুক্ষণ এভাবে থাকার পর ধীরে ধীরে আমার শরীরে ঠোঁট ছুঁইয়েই নীচের দিকে নামতে থাকলেন। প্রথমে থুতনি, গলা, বুক, পেট, নাভি, তলপেট এরপর সেই চরমতম স্থান, লিঙ্গের উপরের ত্বকটা সরিয়ে গোলাপি মাথাটায় একটা চুমু দিলেন, তারপর জিভ দিয়ে খেলতে শুরু করলেন, আমার সুরসুরি লাগতে লাগতে হঠাৎ হিশু পেয়ে গেল।

সেকথা বলাতে উনি বললেন, 'এখানেই কর'। আমি উঠতে চাওয়াতে উনি আবার ঠেলে দিয়ে, দুষ্টু চাহনিতে হাসতে হাসতে, উঠতে না দেওয়ার ইঙ্গিত করলেন। আমি অগত্যা শুয়ে পড়লাম, আর আমার নুনু থেকে হিশুর ফোয়ারা উঠতে শুরু করল। বৌদি হাঁ করে তার সমগ্রটা নিতে চেষ্টা করলেন। হিশু পড়ে আমার ছাল ওঠা জায়গাটা জ্বলতে শুরু করল। সে কথা বলাতে উনি সে জায়গাটা চাঁটতে শুরু করলেন। কিছুক্ষণ পরে উনি আবার আমার লিঙ্গে মনোনিবেশ করলেন। আমার প্রসাবস্নাত লিঙ্গমুন্ড এবার পুরোটাই মুখে পুরে নিলেন। আমার সারা শরীরে শিহরণ খেলে গেল।

ইতিপূর্বে কোনো নারীর জিভ তো দূর হাতেরও স্পর্শ পায়নি আমার এ গোপন অঙ্গ। মুখ দ্বারা যতরকম ভাবে সম্ভব আদর করতে থাকলেন, আমার পুরুষ অঙ্গে, চেঁটে, চুষে, কামড়ে। মাঝেমধ্যে লিঙ্গ বের করে, অন্ডকোষ মুখে পুরে চুষতে থাকলেন। আদিম উন্মত্ততা হ্রাস করেছিল আমাদের দুজনকে। অনেকক্ষণ যাবৎ কিছু একটা তলপেট থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছিল। আমি যথাসম্ভব আঁটকে রাখার চেষ্টা করছিলাম কিন্তু আর আঁটকে রাখা সম্ভব হল না।

হুড়হুড় করে বেরিয়ে উষ্ণ শ্বেতবর্ণ তরল, পুরুষগহ্বর দ্বারা। বৌদি কতদিনের যেন ক্ষুধার্ত তেমন ভাবে যতটা শুষে নেওয়া সম্ভব শুষে নিলেন। এরপর আমার বুকে মাথা দিয়ে শুয়ে পড়লেন। এভাবে কিছুক্ষণ পড়ে রইলাম দুজনে। হঠাৎ করে যেন, সময়-স্থান জ্ঞান ফিরে এল দুজনের। কী সর্বনাশ! এরম প্রকাশ্য দিবালোকের মাঝে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে আমরা এ কী করে ফেললাম। সমাজ যদি জানতে পারে, পরিবার যদি জানতে পারে, মেনে নেবে কি!? কিন্তু তখন কি আর আমরা এসব প্রশ্ন-যুক্তিকে পাত্তা দেওয়ার মেজাজে ছিলাম!?

বাড়ির চারদিক দেওয়ালে ঘেরা, দেওয়ালে কাঁটাতারের বাঁধা, বাগানটা বাড়ির পেছন দিকে আর এতটাই ঘন, যে হঠাৎ করে ধরা পড়ার কোনো উপায় নেই। বাগানের একদিকে, বাগানে জল দেওয়ার জন্য একটি নল ছিল, আমরা সেখানে পরিষ্কার হলাম দুজনে, তারপর নগ্ন হয়েই আমরা ঘরে প্রবেশ করলাম। বাথরুমে ঢুকে দুজনেই নিত্যনৈমিত্তিক কাজকর্ম যা বাকি ছিল শুরু করে দিলাম। এরপর দুজনে দুজনকে স্নান করিয়ে, পরিষ্কার করিয়ে দিলাম। বৌদি ওইভাবেই রান্নার কাজ করলেন, আমিও সাধ্যমতো সাহায্য করলাম। খাওয়াদাওয়ার পর, আমার ছাল উঠে যাওয়া গোপন অঙ্গে বৌদি ঔষধ লাগিয়ে দিলেন। তারপর আবার এলিয়ে পড়লেন আমার বুকে। একেকবার হাতদিয়ে আমার পুরুষ অঙ্গটিকে আদর করতে থাকলেন এবং আমি ওনার স্তনদ্বয়কে। তারপর হঠাৎ উঠে বসলেন, আমার ওপর, আমার পুরুষ অঙ্গটিকে ধরে গুঁজে দিলেন নিজের নারীচিহ্নে,তারপর বসে পড়লেন, আমার পুরুষ অঙ্গটি বৌদির গভীরে প্রবেশ করল, প্রথমবার কোনো যোনির পরশ পেলেন মহাশয়। বৌদি আমার ওপরে বসেই ঠোঁটজোড়া নামিয়ে আনলেন, আমিও নিশ্চিন্ত হয়ে সাড়া দিলাম। আপাতত অনেক সময় হাতে আছে।
 

Users who are viewing this thread

Back
Top