What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

MOHAKAAL

Mega Poster
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
2,263
Messages
15,953
Credits
1,447,334
Thermometer
Billiards
Sandwich
Profile Music
French Fries
আমার টিচার এবং ইনসেস্ট শিক্ষা - by alex_rizwan_1

ইনসেস্ট শব্দ টির সাথে সেভাবে আমি কখনোই পরিচিত ছিলাম না। খুব সাদামাটা ঢাকা শহরের মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান ছিলাম। মা বাবার এক মাত্র সন্তান। ঢাকা শহরের একটি মোটামুটি নামী স্কুলে পড়ালেখা করেই দিন পার করছিলাম। কিন্তু আমার এই সাদামাটা জীবন ই এক জন হোম টিউটরের আগমনে যেন এক অন্য রূপ ধারণ করলো। যা আমি কখনোই কল্পনাই করিনি। আমার মায়ের প্রতি কিভাবে আমার ইনসেস্ট ভাবনা জন্মালো এবং তার অন্তিম পরিণতি কি, সেই গল্প ই শুনাবো এই সিরিজে।

আমার নাম শুভ। যা বললাম ঢাকা শহরের একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে বাস। বাবা বেসরকারী অফিসে কাজ করেন। আমার মায়ের নাম শায়লা। বয়স ৩৯ এর ঘরে তখন। উচ্চতা ৫ ফিট ৪ ইঞ্ছি হবে। মাএর চেহারা খুব অসাধারণ নায়িকার মত সুন্দর না। কিন্তু সে যথেষ্ট সুন্দর। গায়ের রঙ হলদে ফর্সা। একটু মোটা গড়নের। মা এমনিতে খুবি রক্ষন শীল। বাসায় আমি বুঝবার পর থেকে তাকে ওরনা ছাড়া দেখিনি। বাহিরে গেলে মাথায় কাপড় জড়িয়ে যান। এবং বাসায় সব সময় সালোয়াড় কামিজ পরেন। মায়ের গলায় একটি গোল্ড চেইন পরেন, ডান হাতে একটা চুরি। আংটি খুব একটা তার পছন্দের না। কানে একটা সাদা রঙের ছোট্ট দুল পরেন। তো মায়ের দিকে আমার ওইরকম নজর কখনো ছিলনা, যা ঘটনা ক্রমে আমার জীবনে আসে। এই ঘটনা যখন থেকে শুরু হয় তখন আমার জীবনে প্রথম ইনসেস্ট শব্দ টি প্রবেশ করে। তো ঘটনা ধীরে ধীরে শুরু করা যাক।

বড় ক্লাসে উঠবার জন্য বাসায় হোম টিটর রাখতে হয় আমার। মা ই টিচার এর খোজ করেন এবং পরে আমাদের পাশের বাড়ির এক আঙ্গকেল একজন ভারসিটী পরুয়া টিচার ঠিক করেন। তার নাম ছিল রাজন। তো ফোনে কথা বলার পর একদিন বিকালে রাজন ভাইকে বাসায় আসতে বলেন মা। তো একদিন বিকালে রাজন ভাই আমাদের বাসায় আসেন। বেশ লম্বা এবং মোটামুটি পড়ুয়া এক্সছাত্র ই সে। পরনে একটা চশমা। হ্যাংলা পাতলা। রাজন ভাই বাসায় এলে আমি গেইট খুলে দেই। আমাদের বাসায় রুম মূওলত তিনটে। একটা ডাইনিং এবং দুটো বেড রুম। আমার রুমে একটি খাট আছে এবং একটি পড়ার টেবিল। রাজন ভাইয়া এসে পড়ার টেবিলে বসেন। আমি ভাইয়ার সাথে পরিচয় হই। ভাইয়া আমার স্কুল পড়ালেখার খোজ নিতে নিতেই মা চলে আসেন। মায়ের পরণে সালোয়ার কামিজ। সাদা একটা সালোয়ার আর কালো পায়জামা। আর কালো ওরনা। মাথায় কাপড় দেন নি কিন্তু একদম বুক ঢেকে এসেছেন। মা এসে রুমে ঢুকতেই রাজন ভাইয়া দাঁড়িয়ে সালাম দেন মা কে। এরপর মা খাটে বসেন এবং রাজন ভাইয়ার সাথে সব বিষয় নিয়ে আলাপ করতে থাকেন। কবে আসবে সে, কি পরাবে ইত্যাদি। এর মধ্যেই হঠাত মায়ের ফোন আসে। মা রাজন ভাই কে একটু ইশারা দিয়ে ফোন টা রিসিভ করে কথা বলতে থাকেন। তখন আমিও অন্যমনস্ক হয়ে এদিক সেদিক তাকাতে তাকাতে রাজন ভাইয়ার দিকে তাকাতেই আমি একটু থমকে যাই।

রাজন ভাইয়া মায়ের হাতের দিকে এক নজরে তাকিয়ে আছেন এবং ঘন ঘন ঢোক গিলছেন। মায়ের ফর্সা হাতে একটু হালকা লম্বাটে আঙ্গুল। বাম হাতে নখ আছে একটু লম্বা , ডান হাতে নেই। মা ডান হাত দিয়ে ফোন কানে দিয়ে আছেন আর বাম হাত তার কোলের উপর রেখে দিয়েছেন। এবং রাজন ভাই এক দৃষ্টি তে মায়ের হাতের দিকে তাকিয়ে আছে। এই দৃষ্টি টা একটু অন্যরকম। মনে হচ্ছে রাজন ভাই মায়ের হাতের সব আঙ্গুল গুলো পরখ করছেন। এবং কিছু ভিন্ন একটা ভাবছেন। এরপর তার চোখ চলে যায় নিচের দিকে মায়ের পায়ের কাছে। মায়ের পা বেশ সুন্দর। ফর্সা পাতা, সাদা আঙ্গুল আর হালকা চ্যাপ্টা নখ। নীল নীল ভেইন গুলো যেন তাকিয়ে আছে এমন লাগে।

মা পা দুটোকে এক জায়গায় করে বসে ছিলেন এবং পায়ের আঙ্গুল হালকা নাড়াচারা করছিলেন। রাজন ভাই মায়ের পায়ের দিকে তাকিয়ে ঘন ঘন নিঃশ্বাস ফেলতে লাগলেন। এবং এটা দেখেই আমি গরম হয়ে গেলাম কেন যেন, আমার ধন আস্তে আস্তে দাঁড়িয়ে গেল। এ এক আজব অনুভুতি। রাজন ভাই তাকিয়েই আছে পা দুটোর দিকে। যেন সে প্রত্যেক্টা আঙ্গুল এবং প্রত্যেকটা নখ পরখ করছে। মা এর ফোনে কথা শেষ হয়ে যেতেই সে আবার ঠিক হয়ে বসে। এবং মায়ের সাথে কথা শেষ করে বিদায় নেয়। আমার সাথেও বিদায় নেয়। কাল থেকে আসবে বলে।

সেদিন রাতে আমি সারারাত মায়ের হাত আর পায়ের দিকে তাকিয়ে থাকি। কেমন যেন অদ্ভুত লাগছে। কি সুন্দর আঙ্গুল গুলো। খাওয়ার টেবিলে বাবার সাথে খেতে বসে খেতে খেতে দেখতে থাকে মা কাজ করছে। তার আঙ্গুল গুলো দেখতে থাকে। আমার ধন আস্তে আস্তে গরম হতে থাকে। খাবার পর মা তার রুমে বসে টিভি দেখছিলেন। আমি তার পাশে টিভি দেখার ভান করে বসি এবং তার পায়ের দিকে তাকিয়ে থাকি। এই পায়ের দিকেই কেমন একটা নজরে তাকিয়ে ছিলেন রাজন ভাই। তিনি কি এই পা তে কিছু করার কথা ভাবছিলেন? এই হাতে? কি করতেন? হাত দিতেন নাকি???

আমি বিছানা তে শুয়ে চোখ বন্ধ করে ভাবছিলাম এইসব এবং নিজের অজান্তেই নিজের ধন টা ডলতে থাকি। উফফ এত ভাল কেন লাগছে! বুঝতে পারছি না। সেদিন রাতে এসব ভেবেই কাটিয়ে দেই।

পরদিন রাজন ভাইয়া এসে পরাতে শুরু করে আমাকে। কিছুদিন এভাবে চলে। মা খুব একটা আসেন না এই রুমে রাজন ভাই আসলে। তিনি তার রুমে থাকেন বা রান্নাঘরে কাজ করেন। একদিন চা দিতে এসেছিলেন এবং যথারীতি আমি দেখলাম সে মায়ের হাতের দিকে তাকিয়ে ঢোক গিলছেন। মা যখন চলে যান মায়ের পিছনের দিকে তাকিয়ে থাকেন। তো এভাবেই চলছিল হঠাত একদিন রাজন ভাই জিজ্ঞাসা করে,
– আন্টি কোথায়? দেখছিনা যে।
– মা বোধ হয় তার রুমে টিভি দেখছেন।
– ওহ। আচ্ছা। আন্টি কি বের টের হন না?
– হ্যা হয় কিন্তু কম।

আমি কেন জানি বুঝতে পারি রাজন ভাইয়ের আমার মায়ের প্রতি একটা ভয়ানক আকর্ষণ আছে। আমি কেন জানি সেটা আরেকটু জানতে চাচ্ছিলাম। তিনি আসলে কি ভাবেন! কিন্তু কিভাবে কি বলবো বুঝতে পারছিলাম না। রাজন ভাইয়া আমাকে পরাচ্ছেন কিন্তু আমার মন অন্য দিকে।
আমি এরপর হঠাত বললাম,
– মা খুব একটা বের হয় না বাসা তেই থাকে। এমনিতে কেনাকাটা করতে বের টের হন।
– ওহ আচ্ছা। কি কেনেন এমনিতে?
– এই জামা কাপড়, স্যান্ডেল।
– ওহ আন্টি কি সব সময় ই সালোয়ার কামিজ ই পরেন?
– হ্যা। সব সময় ই। বাসাতেও।
– ওহ। আচ্ছা।
– এমনিতে বাসায় একটু হালকা সালোয়ার পরেন, বাহিরে গেলে ভারী।
– হালকা বলতে?
– মানে এই একটু পাতলা কাপড়ের।
– ওহ আচ্ছা। এমনিতে আন্টি কি সাজ গোজ কম করেন?
– হ্যা এইতো যেভাবে দেখেছেন সেভাবেই থাকে।
– এমনিতে হাত পায়ে নেইল পলিশ দেয়া বা এইরকম কিছু?
– পায়ে একবার নেইল পলিশ দিয়েছিলেন সেটা অনেক আগে কারো একটা বিয়েতে।
– ওহ আচ্ছা। কি কালার দিয়েছিলেন?
– কালো মনে হয়।
– আন্টিকে লাল নেইল পলিশে বেশি মানাতো।
কথা গুলো বলতে বলতে আমি যেন কাপছিলাম, খুব অদ্ভুত ভাল লাগছিল, ধন পুরো টান টান হয়ে আছে আমার।
– লাল নেইল পলিশে দেখিনি মাকে আসলে।
– মনে হয় আমি আসলে জানিনা। হতে পারে।
– আচ্ছা।

এরপর আর কোন কথা হয়নি আমাদের। আমরা আবার পড়াতে মন দেই।

চলবে।
 

Users who are viewing this thread

Back
Top