What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

MOHAKAAL

Mega Poster
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
2,263
Messages
15,953
Credits
1,447,334
Thermometer
Billiards
Sandwich
Profile Music
French Fries
কলাকোপিণী - by _

পাঁচ দশক আমার পাঁচ বছর আগেই পূর্ণ করেছে অথচ মীরার সদ্য ঘুমের পাঠ ভাঙতে থাকা পাৎলা কাপড়ের আবরণ ভেদ করা
ওর পরিপক্ক শরীরের তুঙ্গময়ী পর্বতযুগলের উথালন্ততা আর মোহনার সুঘণ পাড় ও সরোবরের ক্ষীণ দেখনে
কোলের মেয়ে নিয়ে ওর ডেরার ডোয়ায় বসে থাকা ওর যুবতী পুত্রবধূ শিখা থেকে রিয়া হয়ে উঠন্ত যুবতীটিকে রস ধারায় টেনে নামালো যেন এ সাতসকালে । সদ্য মা হওয়ার শিথিলতা ওর ভরা দেহে সম্ভোগের পরিশীলন চাইছে , ওর মা ওর এ রসদৃষ্টিকে বরাবরের মত চেখে দেখছে সংগোপনে , সংগোপিনীর সখী যার সুঠাম নাভীবৃত্ত ওপরে যুগল-পৃথ্বীর কাঠিন্য আর নিটোল কোলাঙ্গ ঘণপূর্ণ মোহনাদ্বিস্থ-সরোবর নিয়ে আমায় হাতে সহজ ক্রিয়াকারী – এ গোপীনীর পুত্রবধূ সদ্য তরুণী এক কন্যাবতী মোহিনী আর সদ্য কিশোরী এক সদ্য-পুত্রবতী অম্বাবতী – দুজনেরই মিহি কালো সুঠাম তৃষা যেন ।
মীরার সর্বত্রসঙ্গীনি ওর ছোট বৌ ঊর্মী ওর ছোটাকারের দেহে ঢেউ তুলে মীরার তুঙ্গাদ্বির এমন সহসা উথলতা আড়াল করায় ব্যস্ত থাকায় ওর গিরিদ্বয় মুঠোনে মথন কাঙ্খী নরোম নাভীর সরোবরের তপ্ত রসকে যেন ছুঁয়ে এলাম ।
সকালের এ সংগোপিণী-গোপিণী-মীরা শিখৃয়া-মোহিণী-অম্বাময়ী-ঊর্মী
সন্ধ্যার পরপরই সংগোপিণীর মশলা চা আর চানাচুর-মুড়ি
অন্তর্জাল (ইন্টারনেট) ব্যবহার বিষয়ে চতুর্যুবতী আমার চার কোণে আর পরিপক্ক রমণীত্রয়ী গৃহকর্ত্রী সংগোপিণীর মুখপাত্রতায় হাতের সুললিত ইঙ্গিতে ডাকছে ।
একটু পর একা পুরো দুতলার দুএককের অষ্টকক্ষ ৪যুবতী ১কক্ষে ৭কক্ষ জনহীন , ৩য় তলার এক প্রান্তে আমি উঠতেই দীর্ঘ টানাবারান্দার ভিন্ন প্রান্তের এক অব্যবহৃত কক্ষ-মুখে রমণীরা ডুবে গেল ।
কক্ষটায় যেন ছায়াদের রাজত্ব , সংগোপিণী শয্যাবাতি জ্বালিয়ে আলোকে আড়াল করে শয্যার তিন কোণে তিনে বসার পর আমি ঈশানে – নৈঋত হলো গৃহকর্তৃ । আলো ঘুরিয়ে গোপিণীর হাত আমার কনুই চেপে ধরলো তা শমিত করতে ওর পাথুরে স্তনেদের বুক দিয়ে মিশিয়ে গেঁথে গেঁথে পিঠকে পাঠ করতে করতে ওর ওষ্ঠ আর অধর পান করতে লাগলাম – ওই একটু পর সরে গেল , আমি সংগোপিণীর নাভির শাড়ি সরিয়ে গেঁথে যাওয়া দাগে দাগে করতলের ঘষণ-মথন ওর পরিপক্ক শরীরের কোণে-কোণে সম্ভোগের রসমগ্ন প্রবাহ , হাতগুলোকে মাথার দুপাশে ফেলে সারা দেহই শয্যায় ছড়িয়ে দিলো ।
বাম বগলে করতলের মন্থনের সাথেসাথে ওর নাক ও ওষ্ঠাঘ্ন ও নাকের মোহনায় পরিপক্ক শ্বাস-প্রশ্বাসের গন্ধ-স্বাদ নিতে নিতে ওর তৃষারসে মাখামাখি সুললিত সরোবরে আঁঠালো মন্থণ আর কাঁধ-মাথার নিচে দুহাতের সমন্বিত প্রয়াসে আমার ঠোঁটের মাঝে ওর ঠোঁটের রস আর আমার শিশ্ন সরোবরের রসে স্নান সেরে পাথুরের শরীরের ক্ষীণ বাষ্পের গন্ধ পেয়ে সটান শুয়ে রইলাম ।
পাথুরীর পিঠের চবুতরে স্যাঁতস্যাঁতে সূতি শাড়িঢাকা মেরুতে পূর্ণ করতল রেখেই উঠে পরলাম , ঠাণ্ডাপাত্র থেকে দুধ খেতে খেতে পাথুরী এলো পাথর-ঘাড় করতলে আটকে দুধ খাইয়েই ওর ঠোঁটগুলোকে চুষে-কামড়ে পানেই পাথুরীর পাথরমাংসে নব স্বাদ-গন্ধ
ছায়াচ্ছন্ন এক কোণে ওর পিঠে-ঘাড়ে-ঠোঁটে-গালে-কানে
আমার করতলের মথন ঠোঁট-জিভের স্বাদ-ঘর্ষণ আর নাসার ঘ্ৰাণ-মর্ষণ
নাভিবৃত্তে করতল ঘূর্ণন শেষ করতে না করতেই ওর সরোবরের ভার ঠোটে-স্তনে ভারত্ব এলো
ওই কোণেই ওর কোমল সূতি শাড়ির শয্যায়
ওর সখীর বিপরীত ছড়িয়ে নয় সাজিয়ে রাখলো
আমার ঠোঁট-করতল অতিথি
ওর ভরা স্তন ভরে-ঘনত্বে আমার তৃষ্ণার্ত করতলকে সকাতরে নিতে নিতে সটান নাভিতে করতলকে উথলে ফেলে দিতে দিতেই সঘণ মথিত হতে লাগলো , ওর নাভীতলের আলগা হয়ে আসা নীবিবন্ধন সরে সরোবরমোহনার রসমগ্নতা প্রকাশ পেয়েই সুতীব্র এক গ্রহণ টানে আমায় টেনে নিলো , ওর আর্দ্র কন্ঠায় শ্বাসকেও মন্থনাঙ্গটার সরোবরে ডুবিয়ে দিতেই শুরু হলো বিবিবেশিত ধ্বণিহীন শীৎকারের উত্তালতায় ওর ভরা ঊরু-স্তন-বাহু-ঠোঁটের পিষ্ট-মগ্ন বন্ধনের মথনালিঙ্গন ।
ওর সদ্য সম্ভোগী স্তনেরা আমার ঘুমিয়ে পড়া শ্বাসকে সাদরে ডুবিয়ে রেখেছিল
মীরাকে ঊর্মী কী যেন বলে যেতে না যেতেই সংগোপিণী হন্তদন্ত হয়ে নিচে চলে গেল
সম্ভোগ ক্লান্ত রমণীটি পুত্র ও পুত্রবধূকে নিয়ে উঠে এলো
বধূটি মায়াবী চোখে-মুখ আর সুললিত দেহ নিয়ে এসেই এক হয়ে উঠলো গৃহকর্তৃর উদার সহযোগে
ঊর্বশী স্বামীকে কি আনতে বাইরে পাঠিয়ে ৪যুবতীর সঙ্গী হলো
আমি মীরা আর সংগোপিণীর সাথে মীরা আর ঊর্মীর বরাদ্দের ঘরে এলাম
সংগোপিণী ত্বরা কক্ষে ঢুকিয়েই দরজা দিয়ে আমার হাত ধরে আলো নিভিয়ে মন্থনাঙ্গকে সটান ক'রে
আমাকে ঠেলে শুইয়ে মীরাকে টেনে সটানাঙ্গের ওপর বসিয়ে দিলো
মাথা-বুক তুলে মীরার উথল পরিপক্ব স্তনোপত্যকায় মুখ ডুবিয়ে ঘণ করতলে ওর পিঠ-কোমড়-নাভীবৃত্ত জড়িয়ে সটানাঙ্গে ওকে আবিদ্ধ ক'রে বসিয়ে দিলাম
আমার ঘণালিঙ্গে আবদ্ধতায় পিষ্ট-মথিত একটু একটু শ্রোণী নাড়াতে নাড়াতে সহসা সরোবরে ওঠা এক টুকরা স্ফীত ঢেউ ওর দেহের সব ভাঁপ বের ক'রে ওকে ঘুমের দেশে নিয়ে গেল । মীরার প্লাত প্লত শরীর শয্যার ভেতর কোণে শুইয়ে সংগোপিণীকে কোমড়ে তুলে নিলাম
মথনাঙ্গ গ্রহেই ও ওর পরিপক্ব নরম শরীর আমাতে ছেড়ে দুঊরুর সুললিত পরিপক্বতায় গ্ৰন্থীত-মন্থিত হতে হতে ঠোঁট-গলার রসে রসময়তায় মগ্ন ধীর মন্থন করতে লাগলো যেন অন্তকালাবধি ও আমায় আমারই ভঙ্গীতে মন্থন করবে ।
মন্থনাদরে ঘুমে ডুবিয়ে দিয়েছিলো
রিয়ার ঠেলায় , কোমল স্বর
খাইবেন্না হু এ টা না করে যদি মাঝে সাজেও থাকা যেতো
হাঁটু ঘেঁষে এসে দাঁড়ালো ওর গন্ধে গুরুতর কিছু যোগ হয়েছে ওর আটপৌরে নরম সূতিশাড়িতে পাহাড়ী ঢেউ তোলা বুকবৃত্ত পেড়িয়ে লালতর ঠোঁট বেয়ে ক্লান্ত সুখে ঝিলিক তোলা চোখে থামলাম
সুখী হাসনে ক্লান্ত পেশীরাও ঝলমলিয়ে উঠলো
কর্মপরিক্ব ডান হাতটিকে করতলে মথিতে মথিতে নাকে-ঠোঁটে মেখে গন্ধের নবায়নকে চিনে নিলাম ।
খাওয়ার ঘন্টাখানেক পরই ঘুমন্ত মায়েদের মুখপাত্র রিয়া ঊর্মীকে মীরার শয্যায় , দূশিশু নিয়ে মোহিণী-অম্বাবতীকে এক কক্ষে আর আমাকে ও লতাময়ীকে যার যার কোঠরে পাঠিয়ে দুকরতলে মুখ রেখে ব'সে রইলো ।
আমি রিয়ার বাবার সাথে সবকিছু একটু ঘুরে দেখে ছাদে যেতেই চমকে উঠলাম
ঊর্মীর চমক-চাপা স্বর
দাদা আমি ভূৎনা ! এত তারা !
ওর অস্ফোটিত হাসি , আকাশে তাকাতেই ব্রহ্মহৃদয়ের ঔজ্জল্য আর পারিবারিক বিন্যাসে মনোযোগ বয়ে গেল
ঝাঁজমাখানো মৃদু মিঠে ঘ্রাণে মন ফিরলো
ঊর্মীর চোখের মনে তারার আলো
কী নাম এর ? ব্রহ্মহৃদয় !
এটা অগ্নি যে একই সাথে বৃষ পরিবারভুক্তও ।
অগ্নির এ পাশে স্বাহা আর পুতনা
ওপাশে উরঃ আর প্রজাপতি ।
ওগুলো কারা ? ওরা ৭ ঋষি
আমি বলি যজ্ঞের ৩ শ্রুকের প্রধানটি জুহূ ।
ঐখানে ধ্রুবতারার ৭ সদস্যী পরিবার যাদের ধ্রুবতারাটিকে ঘিরে তারাসকল ঘুরে চলেছে ।‌
প্রতি ২৬০০০ বছরে উত্তরাকাশের কেন্দ্র তারাটি পাল্টে পাল্টে চলেছে ।
একে আমি বলি শ্রুব ।
কফি খাবেন ? নিয়ে আসা যায়না ?
চলুন নিয়ে আসি । আর ?
আরও চাইলে চৌর্যবৃত্তিতে নামতে হবে । থাক থাক ।
ওর পিঠে দ্বিস্তরী পোশাক ভেদ করে করতলের ঢাপর দিলাম তখন থেকেই ওর সকল ছন্দে তরঙ্গ স্রোতস্ব হলো । ওর বানানো কফি নিয়ে দরজাদিকী হতেই রিয়াদের হৈচৈ শুনে ও মিইয়ে গেল ।
শিখার মাথায় জল দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে আসি , তুমি তারাদের কথা ভাবতে থাক ।
ওদের আড্ডাকক্ষে শিখা নেই । ওর ভেজানো দরজা ঠেলে ঢুকলাম , শুয়ে আছে ঘরময় অল্প আলোতে । কপালে করতলের উষ্ণছোঁয়ায় চোখ মেলে তাকিয়েই রইলো তারপর ফিক একটু হেসে উঠে গেল ফিরলো ক্ষিরান্ন নিয়ে ।
ওর স্তনেদের কানায় কানায় আঙ্গুল করতল বুলাতে বুলাতে ওর ঠোঁটগুলোকে নরম আদরে মুখে পুড়ে স্বাদ নিতে নিতে ও আগ্রাসী আদরে মেতে উঠলো , ওর বাহুমূলেরা স্তনের মতো ঘণ মর্দনে পেষণে সুখে সিক্ত হতে লাগলো
রস সরোবরে স্নানার্থীর অবগাহনে
ওর সুখ-পুলকের মোচড় আর হিসহিস অবিরল শীৎকার

সম্ভোগ রসে সিক্ত হয়ে ওঠা শয্যায় গড়িয়ে পড়তে লাগলো ।
 

Users who are viewing this thread

Back
Top