What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

MOHAKAAL

Mega Poster
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
2,263
Messages
15,953
Credits
1,447,334
Thermometer
Billiards
Sandwich
Profile Music
French Fries
আদরের ছোট বোন দীপা পর্ব ১ - by drildeb757

আজ প্রচন্ড গরম। এই গরমে আবার কারেন্ট নেই। সন্ধার পর ভেসপা গরমে বাসায় দম বন্ধ হয়ে আসছে। গরমে জীবন অতিষ্ট তার উপর আবার মশার যন্ত্রনা।
আমি আজ সকালেই ১০ বছর পর কানাডা থেকে ঢাকা এসেছি। যদিও আমরা আসলে বাংলাদেশী না। কলিকাতার মানুষ। তবে আমার দাদার জন্ম ছিল বাংলাদেশে। বাবা একটি বাংলাদেশী কোম্পানির কন্সালটেন্ট হিসাবে চাকরি করে বাংলাদেশেই আছেন প্রায় ১৫ বছর। আমি লেখাপড়া করতে কানাডায় চলে যাই। কানাডার নাগরিত্ব নিয়ে সরাসরি বাংলাদেশে আসলাম। দুর্গাপূজা উপলক্ষে কলিকাতায় স্বপরিবারে কলিকাতা যাব কিছু দিনের জন্যে।। বাবা মা আর আমার বড় দিদি রুপালি আর ছোট বোন দীপালী। দিদি কলিকাতায় স্বামী সন্তান নিয়ে ভাল আছে। দীপালিও কলিকাতায় অনার্স করে কানাডায় যাওয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন। ভিসার অপেক্ষায়। হাতে ফেলেই হয়তো আমার সাথেই চলে যাবে। আমার নাম সজয়।।।

ঢাকা আমাদের কলিকাতার মতই। মানুষ খুব একটা জাতপাত নিয়ে ভাবে না। কলিকাতার মতই মানুষ আর মানুষ। সরকার খুব ভাল করছে কিন্তু তাদের লেজিটেমেসি নেই। সরকারের রিজার্ভ সংকট প্রচন্ড। কয়লার অভাবে প্লান্ট বন্ধ।তাই সমাজেও সরকারের ব্যাপারে একটি দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।
এই সব আমার ব্যাপার না। আমি আসবো বলে দীপালি গতকাল এসেছে। আমার আসার উপলক্ষে বাসায় সবাই আনন্দিত। দীপাও খুব খুশি। এতদিন পর দাদাকে কাছে পেয়। আমি গরম সহ্য করতে না পেরে দীপাকে নিয়ে ছাদে চলে যাই।

আমি যখন কানাডা যাই তখন দীপা মাত্র ১৩ বছরের বাচ্চা। এখন সে ২৩ বছরের যুবতী মেয়ে।। পরিবারের আমরা সবাই মায়ের মত হয়েছি। মা'র পরিবারের সবাই খুব সুন্দর। সবাই আটসাট মানুষ। মোটাতাজা মানুষ এদ নেই বললেই চলে। সেই হিসাবে দীপাও দেখতে অত্যান্ত সুন্দরী হয়েছে। আমার মা কঞ্জারভেটিব হলেও দীপা কিন্তু পুরুদস্ত একজন আধুনিক মেয়ে। চুলের ষ্টাইল, ড্রেস সব কিছুর মধ্যে একটা আভিজাত্য ও আধুনিকতার চাপ আছে। কথাও বলে খুব মিষ্টি করে। কথা বললে মনে হয় যেন মধু মিশ্রিত ফ্লেভার আছে। দীপা যে এত সুন্দরী হয়েছে সেটা আমি কল্পনাও করি নাই। ভিডিও কলে কথা হয়েছে। কন্ঠটা যে মিষ্টি সেটা আগে বুঝেছিলাম। কিন্তু কন্ঠের সাথে সাথে যে শরীরটা এত সুন্দর ভাবি নাই। কি সুন্দর পেন্সিলের মত হাত আর সরু আঙ্গুলগুলি এবং নকে হালকা মেহেদী কালার নেইল পলিশ। শরীরে হালকা মেদ কিন্তু লম্বা প্রায় ৫ ফিট হওয়ায় মনে হচ্ছে খুব টাইটফিইট বডি। অপুর্ব লাগছে আমার আদরের বোনটিকে। খাড়া খাড়া বুকটা আরো সুন্দর। শরীরের সাথে খুবই সুন্দর মিল। ৩৪ সাইজ হবে। বুকের নিচে মনে হচ্ছে এক ঢেউ খেলে পেটটা ভেতরে ঢুকে আছে। একটা খদ্দের কাপড়ের শর্ট কামিজ গায়ে দিয়ে খুব লোজ একটা পায়জামা। পায়ে লেদারের সেন্ডেল আর পায়ের নকে গোলাপি নেইল পলিশ। মাঝারি ডিজাইন করে কাটা চুল। আমার ইচ্ছা করছে বার বার দেখি। গর্ব হচ্ছে আমার ছোট বোন দীপা এত সুন্দর। আমি মুখ ফস্কেই বলে ফেলি, দীপা তুইতো দেখতে অনেক সুন্দর হয়েছিসরে। খুব সুন্দর দেখাচ্ছে।

দীপা একটা মিষ্টি হাসি দিয়ে বলে, কেন দাদা তুমি কি আমাকে মনে করেছিলে আমি দেখতে খুব ক্ষেত হব?
না। কি বলিস। ক্ষেত ভাবি নি কিন্তু এত সুন্দর হবি বুঝি নাই। তোর কাছে তো দেখি আমিই ক্ষেত।।
তা ঠিক দাদা, আমি তোমাকে দেখেই বুঝেছি। তুমি নিজের প্রতি যত্ন নেওনা। মা বলে সব সময় তুমি নাকি নিজের কোন কিছুতেই খেয়াল দাও না। এইভাবে কিন্তু থাকা যাবে না। আমি তোমাকে এখন থেকে বলে দিব কি করে থাকতে হয়। এই যে দেখো তোমার চুলের সাথে কাপড়ে মিল নেই। এই বয়সে কেউ এখন আর ক্লিন সেইভ করে নাকি? আগামীকাল চুলগুলি আরো ছোট করবে আর এক সপ্তাহ দাড়িতে ব্লেইড লাগাবে না। যে কয়দিন আছো কোন দিন শার্ট পড়বে না। জিন্স আর টিশার্ট পরবে।। তোমার কত সুন্দর বডি কিন্তু মুরব্বিদের মত লম্বা হাতের শার্ট গায়ে দিয়ে আড়াল করে রাখো। আম্মু মেয়ে দেখছে। এই ভাবে থাকলে কোন মেয়েই পছন্দ করবে না।

আমি এতক্ষন হা করে শুনছিলাম। আমি কি তোর প্রশংসা করে বিপদে পড়ে গেলাম নাকি রে? আর সব মেয়েরা কি তোর মত চিন্তা করে নাকি?

সব মেয়েরা কি চিন্তা করে সেটা আমার জানার দরকার নাই। আমার দাদা হতে হবে আধুনিক জগতের মানুষ। তুমি জান সালমান খানের চেয়ে শাহরুখ খানে ফলোয়ার বেশি কেন? কারন হল সালমান খান ক্লিন সেইভ করে আর শাহরুখ খান চিমচাম খোচা খোচা দাড়ি। অসুবিধা নাই। আমিতো তোমার সাথে কানাডা যাচ্ছি। দেখবে তুমি অনেক বদলে যাবে।
আমি যদি বিয়ে করি তাহলেও কি আমার প্রতি খবরদারি করবে নাকি? তাহলেতো আমার বউ পালাবেরে?
দীপা আমার কাছে এসে সুন্দর একটা হাসি দিয়ে বলে, দাদা পালাবে না। দেখবে তোমাকে আর অনেক ভালবাসবে। তবে তুমি যদি চাও সেটা আমি গোপনে করতে পারি। আমি তোমাকে টিপস দেব। বউদি জানবে না।।।
আমি দীপাকে বাজিয়ে দেখতে বলি, কি রে দীপা। প্রেমট্রেম করিস নাকি? সত্য করে বল।
দাদা। তা কিছুতো থাকবেই। তবে সিরিয়াস কিছু নাই। আড্ডা মারি। ছেলেটি আমার খুব ভাল লাগে। সমস্যা হল সে অন্য ধর্মের।
অন্য ধর্মের মানে। শুনলাম তুই নাকি পুজাটুজা কিছুই করিস না। আবার অন্য ধর্মের মানে কি?
দাদা ছেলেটা মুসলমান। খুব ভাল বন্ধু। সে আমাকে কখনো বলে নাই ভালবাসে। আমিও না।কিন্তু আমাদের খুব ভাল সময় কাটে এক সাথে। নাসিম ওর নাম। ভয় নাই দাদা। জাষ্ট ফ্রেন্ড।।। তোমার কি অবস্থা কিছুই বললে না দাদা। কানাডায় কি কেউ আছে নাকি?
একটা মেয়েকে আমার খুব ভাল লাগে। ইন্ডিয়ান শিখ। খুব সুন্দর মেয়ে। শিক্ষীত। কিন্তু প্রমিজে বিশ্বাস করে না। অন্য কিছু চায়। আমি সেই ঝামেলায় যেতে চাই না বলেই আগাচ্ছে না।

অন্য কিছু কি দাদা? টাকা চায় নাকি?
তা সব বলা যাবে না। চল নিচে যাই। কারেন্ট এসেছে। আমার ঘুম আসছে।।

কি ব্যাপার দাদা। এই মেয়ের কথা বলতেই তোমার ঘুম আসছে নাকি কথা বলতে ইচ্ছা হচ্ছে। এখানেই ভিডিও কল দাও আমি দেখি। আমি জানি সে কি চায়।
কি জানিস তুই?
আমিও সেটা বলতে পারবো না। এখন দেওয়া নেওয়া চলে। আগের দিন আর নাই। আমাদের ইন্ডিয়ায়তো প্রথম দিন থেকেই ছেলারা হা করে চেয়ে থাকে। না পাইলেই বিদায়। কানাডাতে মেয়েরা চায়।।
দীপা তুই অনেক পেকে গেছিস।

দাদা আমার ২৩ বছর বয়স। তুমি কি মনে কর আমি এখনো কাচা নাকি? এই বয়সে ইন্ডিয়ায় কোটি কোটি মেয়ে মা হয়ে গেছে।।
তাহলে তুইও কি মা হতে চাস নাকি?

না না দাদা। আমি কানাডা যাব। ইঞ্জয় করবো। তারপর মন চাইলে সংসার করবো। স্বাধীন জীবন ইঞ্জয় করে তারপর।।
চল নিচে যাই। এত স্বাধীন ভাল না।।
দীপা চলতে চলতে বলে, হ্যা তুমিতো ১০ বছর ইঞ্জয় করেছো। এখন গিট্র দাও। সেটেল হও।। আমার একটা বান্ধবী আছে। দেখতে পারো। সে তোমার মত এক্সপিরিয়েন্স বিদেশি ছেলে চায়।

এক্সপিরিয়েন্স বলতে কি বুঝাচ্ছিস?
কি বুঝাতে চেয়েছি তুমি বুঝেছো। ন্যাকামো করে লাভ নেই। তোমাকে দেখেই বুঝা যায়।অনেক পানি ঘোলা করেছো।। হা হা হা করে হাসতে থাকে দীপা।।
আমি দীপার হাসিতে হারিয়ে যাই। একটি মেয়ে হাসলে কত সুন্দর লাগে। দীপা আমার বোন না হলে ভালবাসতাম।। আমি দীপাকে বলি, এই দীপা! তোর বান্ধবী কি তোর মতই সুন্দরী দেখতে।
দাদা কি যে বলো। আমার মত হবে কেন? সোনালী সোনালীর মত।।
ও আচ্ছা ওর নাম সোনালী। তোর মত মিষ্টি করে হাসে?
দীপা থমকে দাঁড়ায়। আমার দিকে চেয়ে মুচকি হাসি দিয়ে বলে, না দাদা! সোনালী সোনালীর মত হাসে আর আমি আমার মত।
না এমনি বলিছিলাম। তোর হাসিটা খুব সুন্দর। তাই বলছিলাম।।
দাদা। আগে কলিকাতা চলো। সোনালীকে দেখো। দেখবে সে আমার চেয়েও খুব সুন্দর হাসে।তখন মনে হবে আমি খুব বিশ্রি হাসি। আমার হাসি আর রুপের প্রশংসা করে লাভ নাই। আমি জানি আমি আমার মত সুন্দর। তোমার বোনের মত সুন্দর।
আমি আর কোন কথা খুজে পাচ্ছি না। গাধার মত হুট করে বলে দেই। তুই কিন্তু প্রেমিকা হিসাবেও খুব সুন্দর। বোন বলে কি সত্য বলা যাবে না?
দাদা কারন হল। তুমি আমায় ছাড়া আর কারো সাথে দেখা হয় নাই তাই আমাকেই মনে হচ্ছে সবচেয়ে সুন্দরী। তবে দাদা আমাকে কাছে পাওয়ার জন্যে প্রচুর ছেলে ঘুর ঘুর করে।

আমি দীপার কাধে একটা হাত দিয়ে বলি, যে ভাবে ঢং করে কথা বলিস। ছেলেরাতো পাগল হবেই।। নাসিম ছেলেটা খুব ভাগ্যবান।।।
দাদা নাসিম কিন্তু আমার প্রেমিক না। আমার ভাল লাগে। খুব ভাল ছেলে। আমিই চাই। ইচ্ছা হয়।। তুমি আবার অন্য কিছু ভেবে নাসিমের প্রতি অবিচার করো না।। মাও কিন্তু সব সময় বলে আমার নাসিমের সাথে কিছু আছে নাকি? তোমাকে কিছু বলার আগেই আমি বলে দিয়েছি। যেন তোমার জানা থাকে।।
আচ্ছা ঠিক আছে। তুই যা ইচ্ছা কর আমার এতে কি? জীবনে আনন্দ দরকার আছে।
দীপা আমার দিকে বাকা চোখে তাকায় আর বলে, এই ১০ বছর তাই আসো নাই। নিজের আনন্দ নিয়েই পরে ছিলে তাই না?

আমি হাসি দিয়ে বলি, আরে পাগল। এই যে তুই বললি এক্সপিরিয়েন্স দরকার।
দীপা হাসতে হাসতেই আবার বলে, সাদা কালো ব্রাউন সব কোর্স তাহলে শেষ করেই আসা হয়েছে।।।
হাসি দিয়ে আমি বলি, না রে ব্রাউনটা এখনো হয় নাই।।।
দীপাও হাসি দিয়ে বলে, কলিকাতা চলো, সেটা আমি ঠিক করে দিব। মনে রেখো আবার যেন পরিক্ষায় ফেইল না মারো। আমার ইজ্জত যাবে।।।
আমি ফেইল মারলেই তুই জানবি কি করে?
ও মা। আমি ঠিক করে দিব। আমার বান্ধবী আর সে বলবে না আমায়।
ছি ছি দীপা। তুই আমার ব্যাপারে সোনালীকে জিজ্ঞেস করবি?

না দাদা। আমাকে জিজ্ঞেস করতে হবে না। ও নিজেই বলে দিবে। আমার দাদা কেমন।
তোর লজ্জা নাই দীপা।
বাহ দাদা। লজ্জার কি আছে। তুমিতো আর আমাকে বলবে না। সোনালী সব সময় মার্কসীট আমাকে পাঠিয়ে দেয়।।।

আমি মাপ চাই। যে মেয়ে অন্যের কাছে মার্কসীট পাঠায় সেই মেয়ে আমার দরকার নাই।।।
দাদা রাগ করো কেন? হাসতে হাসতে বলে, আমি সুযোগ করে দিব। ফুর্তি করবে। সত্যি আমি কিছুই জিজ্ঞেস করবো না। সেটা আমার পক্ষ থেকে তোমার গিপ্ট। আবার হাসতে হাসতে বলে, আমি জানি তুমি পাশ করবে। দেখেই বোঝা যায়।।
আমরা যেন খুব তাড়াতাড়িই ফ্রি হয়ে গেছি। আমার কথায় আর লাগাম আসছে না। আমিও বলে দেই। ভেতরে ভেতরে তুই এত এক্সপার্ট। দেখেই বলে দিতে পারিস। তাই না?
দাদা আমি ভেতরে না বাহিরেও অনেক এক্সপার্ট। মনে করো না বিদেশীরাই সব জানে। দেশীরাও এখন অনেক জানে। আমাদের এত বোকা মনে করো না।। আমরা এখন বিদেশীদের সাথে পাল্লা দিয়ে চলি। তুমি বুঝবে কি করে। তুমিতো এখনো ব্রাউন সোগারের স্বাদই পাও নাই।।
আমি লজ্জা পেয়ে যাই। তাই বলি, তুই এত কথা বলিস কি করে। লজ্জা করে না? বাসায় চল। ব্রাউন সোগার।।।
দীপা হাসি দিয়ে আমাকে হাত ধরে টেনে বলে, চলো। চলো, ব্রাউন সোগার কিন্তু হ্যালথি।।
দীপা সামনে সামনে হাটছে। আমি পেছন থেকে দীপার নিটল পাছার দিকে চেয়ে চেয়ে মনে মনে বলি, দীপা তোর পাছাটা খুব রসালো। আমার বাড়ায় যেন কেমন টন টন করছে। ফুলে ফেপে উঠছে। আমি লজ্জিত হয়ে চুপচাপ বাসায় ঢুকে যাই।।

পরের পর্ব কলিকাতায় যাওয়ার পথে।।
 

Users who are viewing this thread

Back
Top