Please follow forum rules and posting guidelines for protecting your account!

Welcome to Nirjonmela Desi Forum !

Talk about the things that matter to you!! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today!

MOHAKAAL

Mega Poster
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
2,355
Messages
16,218
Visit site
Credits
1,508,525
Thermometer
Billiards
Sandwich
Profile Music
French Fries
মধুর মিলন - by anirban512

– কিরে আরু ; ভয় পাচ্ছিস নাকি ?
– ভয় কিসের শুনি মশাই ;এমনিতেই একদিন এই দিনটা আসতো ; আর হ্যা গাধারাম নাকে সিঁদুর না ফেললে দেখাবো মজা।
– আচ্ছা ম্যাডাম আপনি যা বলবেন।

এইসবের মাঝে কখন যে দুজনের বিয়ে হয়ে গেলো সেটাই বুঝতে পারলো না দুজনেই। এবার আরু র ছেড়ে আসার পালা নিজের পরিবার কে , আরুর কষ্ট হচ্ছে কিন্তু তাও নিজেকে কোনোমতে সামলে সব আচার সামলে বেরিয়ে আসে আশীষ এর কাঁধে। আশীষ সেটা আন্দাজ করেছিল তাই বোধহয় আরুষির কান্না সামলাতে পারছে আর ওকে শান্ত করতেও। এসবের মাঝে গাড়ি আসে দাঁড়িয়েছে আশীষের বাড়ির সামনে , আশিষে এর মা বেরিয়ে এসে আরুশিকে বরণ করে ঘরে তুললো ; এরপর একটু বিশ্রাম নিয়ে আরুষি চলে এল নিজের শাশুড়ির সঙ্গে গল্প করতে ; সবের মাঝে আরুষি আর আশীষ কে ডেকে বাড়ির বড়োরা বলে দেয় আজ কালরাত্রি আজকে ওরা একসঙ্গে দেখা করতে পারবে না ও থাকতেও পারবে না। কি আর করা অগত্যা বাড়ির বড়োরা বলেছে বলে কথা। তবু কি নতুন বিবাহিত নর নারীর কি মন মানে সারা রাত ফোন এ গল্প করে কাটিয়ে দিলো। পরেরদিন বৌভাত আর ফুলসজ্জা। আজ সকাল দিয়েই আশীষের উত্তেজনার শেষ নেই সে অপেক্ষা করে আছে রাতের। এইভাবে সময় কী গেলো সারাদিন নানান ব্যাস্ততায় আর হইহুলোড়ে এ। শেষে সব আচার সম্পন্ন করে নবদম্পতি শেষে ফুলসজ্জার ঘরে প্রবেশ করলো।

– এই নাও দুধটা খেয়ে নাও।
– আমি যে আজ এই দুধ খেতে আসিনি অন্য দুধ চাই আমার।
– ইসঃ অসভ্য কোথাকার। নাও বলছি আগে দুধটা খেয়ে।
– আচ্ছা খাচ্ছি , দাড়াও এই বড়ি তা সঙ্গে নিই।
– কিসের বড়ি ইটা ,?
– দাড়াও সেটা সময় হলেই জানতে পারবে তুমি আর জানার জন্য গোটা রাত আছে তাই না।
আরুষি চুপ সে জানে কি হতে চলেছে। দুধ তা খেয়ে আশীষ বললো যায় হালকা ড্রেস পরে এস।
– আচ্ছা যাচ্ছি।

কিছুক্ষন পর আরুষি ফ্রেশ হয়ে এসে গেলো। আরুষি দে দেখে আশীষ মুগ্ধ হয়ে গেলো সারাদিন এত খাটাখাটনি পর ও আরুশিকে সুন্দর লাগছে। আরুষির পরনে একটা টপ আর একটা প্লাজো। আশীষ এতটাই অবাক হয়ে গেছে যে সে নেশামন্ত্রের মতো উঠে এল আরুষির কাছে ; আরুষির মুখটা হাত দিয়ে স্পর্শ করলো আশীষ শিহরিত হলো ; এরপর আশীষ ধীরে ধীরে নিজের মুখ নামিয়ে আনলো নিজের পুরু ঠোঁট চাপিয়ে দিলো আরুষির ঠোঁটের ওপর ; দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়েই প্রগাঢ় কামনা লিপ্ত হলো দুই নরনারী। ততক্ষনে দুজনেই কামপিপাসু হয়ে পড়েছে ধীরে ধীরে আশীষ মুখ সরিয়ে নিয়ে এল আরুষির গলাতে , গলার কাছে ছোট ছোট চুম্বনে ভরিয়ে দিতে লাগলো ; আরুষিও অসাড় হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে। সোহাগের চোটে আরুষি তখন উন্মত্ত। আরুষি আবার আশীষ কে খাটে ফেলে দিয়ে আশীষের পরনে জামাতা খুলে নিলো আর নগ্ন বুকে নিজের জিভ আর আঙ্গুল সহযোগে সোহাগের প্রতিটি কোন ফিরিয়ে দিতে আরুষি তৎপর ছিল। এইভাবে কিছুক্ষন চলার পর আশীষ উঠে বসলো আর আবারো সেম প্রসেস এ আরুশিকে সোহাগ করতে করতে আশীষ ধীরে ধীরে আরুষির পরনে সব পোশাক একে একে খুলে নেয়। খুলতে খুলতে আশীষ অবাক হয়ে যাই এ যে মেয়ে পুরো কামের দেবী আর নগ্ন অবস্থায় পুরো ক্লেওপেট্রার মতো সুসুন্দরী লাগছে। পীনোন্নত স্তন তার নিচে সমতল পেট , মাঝে ছোট ওঠেছো সুগভীর নাভি আরো নিচে নামলে চোখে পরে হালকা কেশ যুক্ত যোনি। এসব দেখে আশীষ অবাক আর অনেককিছুই জানে না এই মেয়েদের শরীরের ব্যাপারে ; আজ প্রথমবার দেখে আমি নিজেই আমাকে বিশ্বাস করতে পারছি না এত সুদুন্দর হয় নারী দেহ। এবার অশীষ শিরে ধীরে গলা ছেড়ে আরুষির বুকে আসলো। বুথের স্তনগুলো যেন একদম অনেক ধৈর্য নিয়ে বানিয়েছে বোধ হয়। স্তনের অরিওলা যেন সাজ বাদামি রং এর আর নিপলস যেন বোরো আঙ্গুর এর দানা র মতো শক্ত ; আশীষ আর সামলাতে পারে না দুটি স্তনের ওপর ঝাঁপিয়ে পরে , দুটি স্তনই আশীষ চেটে কামড়ে একাকার করে দিচ্ছে ; প্রতিটা সময় আরুষি যেন সুখের আতিশয্যে চোখে অন্ধকার দেখতো , আজ সেই দিন যেদিন তার কুমারীত্ব আর থাকবে না।

এবার আশীষ স্তন ছেড়ে আরো নিচের দিকে নামতে শুরু করলো অর্পণ কি নাভিতে কাটিয়ে ফিরে এল সেই বহু অপেখ্যাতিত জায়গায় ; আরুষির যোনি . যোনি সৌন্দর্য দেখে আশীষ অবাক হয়ে গেলো এতো পুরো গোলাপের পাপড়ি , আশীষ মুগ্ধ দৃষ্টিতে চেয়ে আছে কলাগাছের মতো দুই মোটামোটা উরু তার মাঝখানে এত সুন্দর যোনি। এবার আশীষ থাকতে না পেরে যোনিতে মুখ ডুবিয়ে আনলো। প্রানভরে পান করতে থাকলো প্রেয়সীর যোনিসুধা ,আরুষি হিসহিসিয়ে উঠলো আর মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল " আহহহহহ্হঃ". আশীষ আর পারছি না।,আশীষ জিভ ক্লিট এ দিয়ে ঘষতে শুরু করলো আর একটা আঙ্গুল ভোরে দিলো যোনিতে , এই দ্বিমুখী আক্রমণে আরুষি পাগল হয়ে উঠতে থাকলো আর শীৎকার দিতে থাকলো " আহহহহহহহঃ আহহহহহহহঃ আর শেষে হার স্বীকার করে একবার নিজের প্রথম অর্গাজম প্রাপ্তি করলো। এবার ধীরে ধীরে আশীষ উঠে পড়লো নিজের লিঙ্গ সঞ্চালনের জন্য তৈরী হচ্চিল , শেষে আস্তে আস্তে আশীষ নিজের লিঙ্গ যোনিদ্বারে ঘষতে থাকলো সে জানে তার প্রেয়সী এখনো কুমারী এবার সে ঝুকে পরে ঠোঁটে ঠোঁট রাখলো আর সর্বশক্তি দিয়ে প্রবেশ এ সক্ষম হলো । ঠোঁটে ঠোঁট থাকায় আরুষির মুখ দিয়ে উমমম উম্ম শব্দে হালকা আর্তনাদ বেরিয়ে এল। এবার আশীষ চুপ হয়ে আরুশিকে কিছুক্ষন ধাক্কাটা সামলানোর জন্য ব্যবস্থা করে দিলো এবার ঠোঁট সরিয়ে আশীষ
আশীষ : কিগো এবার প্রবেশ করি আরো।
আরুষি: এখনো হয়নি ??
আশীষ : না একটু বাকি।
আরুষি : আচ্ছা এস আমাকে পূর্ণ করো তোমার বীর্যে।

এইভাবে ডাক কোনো পুরুষই উপেক্ষা করতে পারবে না আশীষ তার ব্যতিক্রম না সে আরুশিকে আদর করতে ব্যাস্ত হয়ে পড়লো আরো বন্য ভাবে।
এইভাবে শারীরিক যুদ্ধ চললো প্রায় ৪৫ মিনিট ধরে সবরকম ভাবে রতিক্রিয়া সম্পপন্ন করলো কোথাও বাকি রাখেনি আশীষ আজ আরুষির। ৩বারের বেশি অর্গাজম প্রাপ্তি ঘটেছে আরুষির। এবার
আরুষি : এবার শেষ করো আর পারছি না আমি।
আশীষ :আমার হয়ে এসেছে আরেকটু।
আহ্হ্হঃ আহ্হ্হঃ আশীষ আরেকবার আমার হবে একসাথেই চলো
শেষে আশীষ আরুশিহর বুকে ঝুকে পরে স্তন চুষতে থাকে আর আরুষির যোনিতে নিজের বীর্যস্খলন করে শান্ত হলো আশীষ আর আরুষিও শেষ অর্গাজম দিয়ে । শেষে দুজনেরই মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল " I LOVE YOU "".

প্রথম লিখলাম ভুলত্রুটি হলে মার্জনীয়। পরের গল্প লিখবো যদি কেউ নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করো তাহলে তার ওপর।
 

Users who are viewing this thread

Back
Top