What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

লতা ও মিতা খালা (1 Viewer)

MOHAKAAL

Board Senior Member
Elite Leader
Joined
Mar 2, 2018
Threads
1,468
Messages
14,002
Credits
966,974
Sandwich
Profile Music
French Fries
লতা ও মিতা খালা পর্ব ১ - by drildeb757

মানুষের কোলাহলময় সান্ধ্যনগরীতে কিছুটা শান্ত পরিবেশ তৈরি হয়। এই সময়টা ক্লান্তিতে অবসাদ থাকে মানুষের প্রান। সারাদিনের ব্যাস্ততম সময় শেষে অনেক মুল্যবান। নীড়ে ফেরা, কিছুটা ভালবাসা আর চাওয়া পাওয়া কাজ করে। আমার কাছে এই সময়টার জন্য কোন একজনকে চাই। যে সারাদিনের শেষে এক চা হাতে পাশে বসে জিজ্ঞেস করবে তুমি কি টায়ার্ড?

২৫ বছর বয়স হয়েছে। চাকরি করছি। বাবার ভাল ব্যাবসা আছে কিন্তু অভাব হল একজন কেউ আপন মানুষের। আমার কোন মেয়ে বন্ধু নেই। আমি সেটা মেইনটেইন করতে পারিনা।৷ ছেলে বন্ধুদের সাথেই বেশী আড্ডা আর ঘুরাঘুরি করি। আমার দুইটা খালা মিতা আর লতা আমার খুব ভাল বন্ধু আর সাথে আছে আমার ছোট বোন কনা। আমার কোন মামা নেই নানা মারা যাওয়ার আগেই খালাদের বিয়ে হয়েছে। আমিই তাদের ভাই। সব কিছু আমাকে দেখাশুনা করতে হয়। মিতা খালার ডাক্তার স্বামী খুব ভাল আছে কিন্তু লতা খালার সংসার খুব একটা ভালনা। স্বামীটা বদ মেজাজ স্বভাবের। আলাদা হয়ে গেছে। এখন নানীকে নিয়েই থাকে একটা ইউরোপীয় এম্বেসিতে চাকরী করে। খুব স্মার্ট মেয়ে।

লতা খালা প্রতিদিন ফোন দিবে আর সারাদিন যা হয়েছে আমাকে জানাবে। আমাকে না জানলে যেন ভাত হজম হয়না। নিজের ভেতর যত দুঃখ আছে সেটা একবারের জন্য বলবে না। নিজেকে সুখী সুখী ভাব রেখে চার্মিং ভাবে থাকবে।। যত আত্বীয় আছে সবার কাছে খুব প্রিয় এবং ভালবাসার মানুষ। আবার সবাই ভয়ও পায়। ব্যাক্তিত্বহীন আচরণ ধান্ধাবাজি চালাকি করলে তার খবর আছে। বিবাহ বিচ্ছেদের মুল কারনও সেটা। খালার মাত্র ৩০ বছর বয়স।

গত তিন বছর যাবত আমি খুব বেশি বই পড়ি। অবসর সময় সেটাই আমার কাজ। রাতে ১০টায় বিছায় শুয়ে শুয়ে বই পড়ি আর এই সময়টাই খালা ইদানীং বেচে নিয়েছে। আমাকে ফোন দিবে আর মিটমিট করে কথা বলবে। আমি বহুদিন কথা শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে গেছি। আজ যেই বই হাতে নিয়েছি ঠিক তখনই ফোন।
রিসিভ করতেই এক কথা খাওয়া হয়েছে?

আমিও সেই একই কথা, খালা তুমি জান আমি প্রতিদিন ৮ টার সময় খাই।

রাগ করিস কেন? কথা শুরু করতে ভুমিকা লাগেনা।

প্লিজ খালা তোমার ভুমিকাটি এইবার পালটানোর ব্যাবস্তা কর।

ঠিক আছে কালকে অন্য কিছু জিজ্ঞেস করবো।

আমারও অভ্যাস হয়ে গেছে। খালার কথা, কন্ঠে এক মধুর সুর আছে।

খালা আজ অনেকটা খুশি খুশি মনে হচ্ছে। আমাকে বলে, রাজু একটা খবর আছে।

কি খবর বলে দাও। প্রতিদিনই কিছু একটা থাকে। আজ আমি ক্লান্ত ঘুমিয়ে যাব।

শুন, আমার অফিস থেকে একটা ভেকেশন গিপ্ট দিয়েছে। ইউরোপ ট্যুর। যেকোন তিন দেশে মোট ১৫ দিন হোটেল এবং টিকেট ফ্রি।

আমি একটু খুশি খুশি হয়ে বলি, খুব ভাল ঘুরে আস তাহলে।

এই গাধা, আমি একা একা কি করে যাব। ভয় করেনা। আর শুধু আমার জন্য না। আমার পার্টনারের জন্যও আছে। ট্যুর ফর টু।

তাহলে ভাল, খালু বেচারাকে খোজে দেখ কোথায় আছে। নিয়ে যাও।

আমি পাগল হয়েছিতো, বলদকে নিয়ে যাব। তুই যাবি আমার সাথে। তুই কখনো ইউরোপ যাসনাই। তুই চল।

আমি তোমার পার্টনার নাকি? আমি যাব কেন?

গাধা ওরা কি আর দেখতে আসবে?

আজ আর কথা বলবোনা আমি ঘুমাবো। তুমি তোমার একটা পার্টনার খোজে ঘুরে আস। আমার নতুন চাকরি আর মা বাবা দিবেনা।

তোর মা বাবা দিলে যাবি? ঠিক আছে আমি কালকে বাসায় আসছি। দেখা যাবে। এই কথা বলেই ফোন রেখে দেয়।

পরের দিন আমি অফিস থেকে এসে দেখি খালা বাসায় আব্বু আর আম্মুর সাথে আড্ডায় ব্যাস্ত। আমাকে দেখেই বলে, রাজু সব ঠিক। আপু আর দুলাভাই তোকেই আমার সাথে যেতে বলেছে। তোর পাসপোর্টটা আমাকে দিতে হবে। কালকেই জমা দিব।
আমি আম্মুর দিখে তাকাতেই আম্মু বলে, সুযোগ যেহেতু আছে ঘুরে আয়। লতা একা একা যাবে তুই সাথে গেলে আমরাও চিন্তামুক্ত থাকতে পারি।

খালা আমার পাসপোর্ট নিয়ে চলে যায়।।।

সপ্তাহ খানেক পর বিকাল বেলা আমাকে ফোন দিয়ে বলে, হাই পার্টনার, আমাদের ভিসা হাতে পেয়েছি এখন কোন দিন যাব সেটা ঠিক করে টিকেট বুকিং দিতে হবে।

খালা, আমিতো অফিসে কিছুই বলিনাই। তুমি আগে বলবে না যে ভিসা হয়ে যাবে।। আর কি পার্টনার পার্টনার বলছো।।।

এখন থেকে দুই সপ্তাহ আমরা পার্টনার। সেটা পার্টনার ভিসা। আজ অফিসে বলে আয়।। রাতে কথা হবে।।। বাই

আমি আমার বসকে বলতেই বলে, কোন অসুবিধা নাই। একটা লেটার ড্রফ করে দিয়ে যেতে পারেন।।। এক মাস হলেও অসুবিধা নাই।

রাত ১০টায় ফোন। আমি সব বলতেই খালা খুশি। দিন ঠিক করে নিলাম। সুইজারল্যান্ড, জার্মান আর ফ্রান্স যাব। পুরু প্লান ঠিক করা হল ফোনেই।

হঠাৎ খালা বলে, রাজু একটা সমস্যা আছে। আর সেটা হল। হোটেল রোম বুকিং দিতে পারবো একটা। সেটার কি হবে?

আমি বললাম, সেটা আমরা সেখানে গিয়ে আলাদা করে রোম নিলেই হবে। চিন্তার কিছুই নেই।।

ঠিক আছে, চল কালকে শপিং করি। কি কি নেওয়া যায়। অবশ্য আমি সেখানে গিয়েই কিছু কিনবো।

তাই ভাল খালা, হালকা কিছু নিয়ে চলে যাব। আর আমার শুধু প্যান্ট আর টিশার্ট হলেই চলে।

আমরা বিচে যাব। তুই যাবিনা। যেখানে যাব সেখানে বিচ আছে কিনা কে জানে। বিচের জন্য বিখ্যাত হল স্পেইন।

অসুবিধা কি বিচ থাকলে যাব কিন্তু খালা সেই দেশে কক্সবাজারের মত সালোয়ার কামিজ পরে পানিতে যায়না। অন্য কিছু পরে নামতে হয়। আবার শুনছি অনেক বিচ নাকি ন্যাকেড থাকে সবাই।

তুই কি মনে করিস আমি কিছুই জানিনা। সেখানে গেলেই সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে। তবে মানুষ যে জায়গায় যায় সেই জায়গার রুপ ধারন করা উচিত। সরাসরি বলতেই পারিস সেখানে বিকিনি পরে সমুদ্র স্নান করতে হয়।

বিকিনি টিকিনির কথা তোমার সাথে আমি কি করে বলি। এম্ভারেসিং ব্যাপার হবে কিন্তু।

সেটা চিন্তা করে এখনোই এম্ভারেস হয়ে যাসনা তো। দরকার হলে যাবনা।।। ভুলে যাসনা তুই কিন্তু আমার পার্টনার।

খালা পার্টনার বলতে স্বামী বা বয় ফ্রেন্ড। আর আমি তোমার ভাগিনা।।

আরে গাধা সেটাতো জানি আমি আর তুই। মানুষকে সেটা বলে বেড়াতে হবে নাকি। মানুষ ভাবতেই পারে তুই আমার লাইফ পার্টনার। মানুষের ভাবনায় আমাদের লাইফ পার্টনার মানাবে কিন্তু।

না খালা, মানুষ আমাকে মনে মনে গালি দিবে। বলবে শালা হাবা একটা পুলা কি সুন্দরী একটা মেয়ে নিয়ে ঘুরে।

সেটা তোর চিন্তা। মানুষ হয়তো উল্টাটা বলবে, তুই কি জানিস তুই কত হ্যান্ডসাম। তুই কিন্তু অনেক হ্যান্ডসাম কিন্তু সেটা তুই ইউজ করিস না। জানিস কত মেয়ে তোর জন্য পাগল? নিজেকে সম্মান কর। You are a very handsome Guy.

আমি তোমার ভাগিনা তাই এমন করে বলছো।

কি বলিস, সত্যিই তোর সব কিছুই ভাল লাগার মত। ফিট, লম্বা, ব্লো চোখ। মেয়েদের রসগোল্লা কিন্তু তোর মেয়ে বন্ধু নাই। মাঝে মাঝে আমি চিন্তা করি।

আমার প্রসংশা করার দরকার নাই। তুমি কম কিসের অপুর্ব সুন্দরী, স্মার্ট শিক্ষিত কিন্তু বিয়ে করেও ছেড়ে চলে এসেছো। আমার ভয় আরো বেড়ে গেছে। যদি আমাকে ছেড়ে চলে যায়।

গাধা, আমিতো ফ্যামিলির চাপে বয়ে করেছিলাম, দেখতে ভালই ছিল কিন্তু স্বভাব এত খারাপ কে জানতো। তোর মাঝে সেই গুন আছে আমি জানি যা মেয়েরা পছন্দ করে। আর তুই জেনে শুনে চলে ফিরে তারপর সিদ্ধান্ত নিবে।

বাদ দাও, আপাতত ট্যুর নিয়ে চিন্তা করি।

হ্যা সেটাই ভাল। আমরা কি করে কোয়ালিটি সময় পার করবো সেটা নিয়ে চিন্তা করি।

কয়েকদিন পর বার্ন সিটি হোটেল ওয়েষ্টার্ন পৌছে যাই। বিশাল রুম, দুইটা সিংগেল খাট। একই রুমে থাকা যাবে অসুবিধা নাই। ইচ্ছামত ঘুম দেই আগে। সেই বিকাল বেলা উঠে পাশে গিয়ে পিজা খেয়ে আবার হোটেলে আসি। রেডি হয়ে শহরে বাহির হয়। কি সুন্দর শহর যেন ছবি। আ সামনে পাই তাতেই খালা ছবি তুলে। খালাকে খুব আনন্দিত মনে হচ্ছে। আমার বার বার মনে হচ্ছে নিজের বউকে নিয়ে আসলে কত মজা হত। একবার বলেই ফেললাম, খালা এমন সুন্দর শহরে স্বামী স্ত্রী আসা দরকার। মন প্রান জুড়িয়ে যেত।

খালা আমার দিকে হা করে চেয়ে থেকে বলে, তাহলে তোর মধ্যে এমন ভাবনা আসে তাহলে। এখানে সবাই প্রান খোলা, হাত ধরে হাটছে, মন খোলে প্রেম করছে, এই সব দেখে সবার মনে এমন ভাবনা আসে। আমারও শুন্যাতা অনুভব হচ্ছে।। আমরা দুধের স্বাদ ঘুলে মিটাইতে হবে। তুই চাইলে আমার হাত ধরে হাটতে পারিস।

তোমার হাত?

কেন? আমার হাতে কি ময়লা? আমি মনে করবো আমার ছেলে হাত ধরেছে আর তুই মনে করবি মায়ের হাত। মানুষ মনে করবে প্রেমিক প্রেমিকা। একটা থ্রিল থ্রিল ভাব আছে।।

না না, আমি শিশু বাচ্চার মত মায়ের হাত ধরে হাটতে চাইনা। দরকার নাই।।

সুযোগ দিলাম কিন্তু নিলে না। অন্তত এই সুন্দর শহরে একটি মেয়ের হাত ধরে হাটার অভিজ্ঞতা হত।

সুযোগ দিচ্ছ না নিচ্ছ সেটাই ভাবছি। মেয়েদের আবার বোঝা যায়না। হউক সে মা আর হউক সে বউ। অনেক গভীরতা তাদের মনে।

ঠিক বুঝতে পেরেছিস। মেয়েদের সেই গভীরে যে পুরুষ ঢুকে যেতে পারে সেই পুরুষ সুখ পায়, ভালবাসাময় হয় তাদের জীবন। মেয়েদের ভালবাসা গভীরে বাস করে। অনেক পুরুষ সেটা বোঝেনা, যারা বোঝে তারাই সুখী দম্পতি।

এত গভীরে যাওয়ার সময় কই। একটু উপরে উঠিয়ে রাখলেই পার। যেন সহজেই কপ করে ধরা যায়, চুয়া যায়।।।

আগুনে পড়ে কিন্তু সুন্দর সুন্দর অলংকার তৈরি হয়। এত সহজ না। মেয়েরাও তাই। এইবার চল এখানে বসে কপি খাই।

কপি খেয়ে আবার হাটা। আমি হঠাৎ খালার হায়ে হাত দেই। খালা আংগুল গুলি খুলে আমার আংগুলে পেছিয়ে নেয়। আমি একটা সেল্ফি নেই, খালা আমার গালে গাল রেখে বলে এইবার তুল। এমন করে অনেক ছবি সেল্ফি উঠাই। প্রতি সেল্ফিতেই খালা আর ঘনিষ্ঠ হয়ে শরীর লাগিয়ে দেয়। ক্লান্ত হয়ে যাই তাই হোটেলে ফিরে যাই।।

হোটেলে গিয়ে খালা চেইঞ্জ করে নাইট গাউন পরে নেয়। কাল সকালে বাহির হব আর রাতে আসবো। সেই রকম ঘুম দিতে হবে।

আমি মোবাইলে সেল্ফিগুলি দেখছিলাম। খালা বলে, কি করিস মোবাইলে। আমি ছবি বলতেই খালা উঠে আমার কাছে আসয়ে আসয়ে বলে একা একা দেখছিস কেন। আমাকে দেখতে দে।

খালা তুমি, সব কয়টি সেল্ফিতে আমার খুব কাছে চলে এসেছো। কাউকে দেখানো যাবেনা।

কি তুই কি এইগুলা কাউকে দেখানোর জন্য তুলেছিস। আমি ভাবছি শুধু তুই দেখবি। সব গুলো ডিলেট করে দিবি যাওয়ার আগে। আমরা আরো অনেক তুলবো। যাওয়ার আগের দিম শুধু এই গুলি দেখবো তারপর ডিলেট।

তুমি একটু দূরে দাড়ালেই হত। গা ঘেষে ঘেষে ছি ছি।

আমি তোরে শুধু উপলব্দি করাতে চাই। নিজের বউ থাকলে কেমন লাগতো তোর সাথে। যেন ফিরে গিয়েই কাউকে ধরে নিস।।

চমৎকার আইডিয়া। তুমি কি মনে কর আমি কচি বাচ্চা। কিছুই বুঝিনা। গার্লফ্রেন্ড থাকলে কেমন দেখাতো সেটা জানি।

ভাল না লাগলে আমার ফোনে পাঠিয়ে দিয়ে ডিলেট করে দে। আমি দেখবো।।।

না থাক। এক সাথে ডিলেট করে দিব।

আচ্ছা তাহলে ভাল লাগছে।। আয় আর কয়টা তুলি এই নাইট গাউনে। হোটেল রুমে তোর বউ থাকলে কেমন সেল্ফি নিত, সেটা দেখাই। বলেই খালা মোবাইল হাতে নিয়ে আমার আমার গালে চুমা দেওয়ার মত। ঠুটের কাছে ঠুট এনে, আমাকে বিছানায় শুয়ে দিয়ে ডান দুধটা বুকে টেকিয়ে যেন কিস করছে সেই পজিশনে, অনেকগুলি সেল্ফি তুলে। আমি বোকার মত চেয়ে আছি।।।

উঠে বসে খালা দেখিয়ে বলে এইবার দেখ।। এইগুলি হল ইন্টিমেট সেল্ফি। যা স্বামী স্ত্রী তুলে।।।

আমি চেয়ে দেখে বলি, খালা তুমি আসলেই ভেতরে ভেতরে অনেক নটি। এইভাবে আমার সাথে তুলেছ। লজ্জা করেনা।।। আমার চেহারা ফেকাসে হয়ে গেছে লজ্জা।

এইখানে কি কেউ আছে। আমরা এডাল্ট। অসুবিধা কি।। আমার কিন্তু ভাল লাগছে।

তোমার হয়তো অনেক কিছুই ভাল লাগে। দেখ এমন ভংগী করেছ যেন চুমাতে চুমাতে টায়ার্ড হয়ে গেছ। আর একটু হলেই লেগেই যেত।।

কিরে মনে হয় অভিমান করছিস। কেন লাগলো না।

জ্বি না। অভিযোগ করছি। লাগালাগি চলবে না। তবে তুমি যে এত সেক্সি ভাব নিতে পার সেটা কল্পনাও করিনাই। দেখতে এক আর ভেতরে অন্য কেউ।।

আমি দেখতে যেমন তেমন কিন্তু ভেতরে সেক্সি তাই বলদের ঘর করতে পারিনাই।।।

তাই মনে হচ্ছে। সামাল দেওয়া কঠিন হবে।

সামাল দিতে হয়না শুধু পার্টনার একটু সেক্সিষ্ট হলেই সব আয়ত্বে চলে আসে। সেটাকে বলে কেমেষ্ট্রি।।।।

হইছে এইবার তুমি যাও। লেপের নিচে গিয়ে কেমেষ্ট্রি কর।

খালা বড় বড় চোখ করে আমার দিকে চেয়ে বলে, কি বললি? What you mean.

বলছি ঘুমিয়ে যাও। লেপের নিচে।।

পরের দিন সারাদিন ঘুরে বেড়াই। রাতে একবার নাইট ক্লাবে যাব। ঠিক করি। দেখার জন্য। দেখা হয়নাই কখনো আমার। খালা অফিসের পার্টি করে অভ্যাস আছে কিছুটা। হোটেলের নেক্সট বিল্ডিংয়ে।

রাত ১২ টায় ক্লাবে যাই। হোটেলের গেষ্ট হিসাবে পাস আছে। কানায় কানায় ভরপুর। আমি কয়েকবার বিয়ার খেয়েছি। খালাকে বলি, আমি একটা বিয়ার খাব। খালাও একটা ওয়াইন খাবে। বেশি না।

সঙ্গে থাকুন …
 

Users who are viewing this thread

Top