What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

    গোলরক্ষকের জন্য চক্ষুবিশেষজ্ঞের পরামর্শ (1 Viewer)

    Bergamo

    Bergamo

    Forum God
    Elite Leader
    Joined
    Mar 2, 2018
    Threads
    9,616
    Messages
    117,048
    Credits
    1,237,863
    Statue Of Liberty
    Profile Music
    Sandwich
    hZ8nTW1.jpg


    গোল না খাওয়া গোলরক্ষক



    নতুন মৌসুমে দল গোছাতে শুরু করেছে শহরের ফুটবল দলগুলো। সাক্ষাৎকার পর্বে নতুন নতুন খেলোয়াড়ের সঙ্গে কথা বলছেন ম্যানেজার, কোচসহ দলের অনেক হর্তাকর্তা। লিগের সবচেয়ে টাকাওয়ালা দলটিতে ভেড়ার আশায় গ্রাম থেকে এক গোলরক্ষক এসেছেন শহরে।

    ম্যানেজার তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘কত হলে খেলবেন আপনি?’

    গোলরক্ষক খানিক ভেবে বললেন, ‘তিন লাখের নিচে হলে খেলব না।’

    ম্যানেজার চোখ কপালে তুলে বললেন, ‘বলছেন কী আপনি! এত টাকা আমরা আপনাকে দেব কেন? কত ভালো ভালো গোলরক্ষক পড়ে আছে, দেখেন গে।’

    ‘ভালো গোলরক্ষক আছে মানছি, কিন্তু জীবনে তারা কত গোল হজম করেছে, তার হিসাব রাখেন? অথচ এই আমি, জীবনে একটা গোলও খাইনি।’

    সব শুনে কোচ তো দারুণ অবাক, ‘আপনি বলছেন, এ পর্যন্ত আপনি একটা গোলও খাননি! কী করে সম্ভব এটা? নির্ঘাৎ গুলপট্টি।’

    গোলরক্ষকের মেজাজ চটে গেছে, টেবিলে থাবা মেরে তিনি বললেন, ‘দেখুন, না জেনে না বুঝে কোনো কথা বলবেন না। জীবনে একটাও ফুটবল ম্যাচ খেলিনি আমি, গোল খাব কোত্থেকে শুনি!’



    সেটাও পারবে না


    পরপর দুই দুটি পেনাল্টিতে গোল করতে পারেননি দলের অধিনায়ক। ভেস্তে গেছে ফাইনাল খেলার স্বপ্ন। খেলা শেষের বাঁশি বাজার পর সবার মনটন বেশ খারাপ। এর মধ্যেই আফসোস সামলাতে না পেরে অধিনায়ক নিজেই বলে বসল, ‘ইশ রে। এমন সহজ সুযোগ হারালাম, ইচ্ছে করছে নিজেই নিজেকে লাথি মারি।’

    ‘চিন্তার কিছু নেই। সেটাও তুমি নির্ঘাৎ মিস করবে।’ জবাব দিলেন পাশে বসে থাকা কোচ।

    wERLaKH.jpg


    মালিক খুশি হয়ে...



    লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দল। বেশ খোশ মেজাজে আছেন দলের ম্যানেজার। তিনি এক দিন ডেকে পাঠালেন জয়ের নায়ক, স্ট্রাইকার হাসমতকে। আট ম্যাচে ১২ গোল করে মহাতারকা বনে গেছে সে।

    ম্যানেজার তাকে দেখে একগাল হেসে বললেন, ‘খুব তো খেল দেখালে হে! দলের মালিক তো বেজায় খুশি তোমার ওপর, বোনাসও দিয়েছেন তোমাকে।’ বলেই দুই লাখ টাকার একটা চেক ধরিয়ে দিলেন হাসমতের হাতে।

    আচমকা দুই লাখ টাকার চেকটা হাতে পেয়ে স্ট্রাইকার হাসমত বিনয়ে গলে গেল। ম্যানেজারের পা ছুঁয়ে সালাম করে বলল, ‘অনেক অনেক ধন্যবাদ ম্যানেজার সাহেব, আসলে আপনাদের কোনো তুলনা হয় না...!’

    ম্যানেজারও কম বিনয়ী নন, পান চিবুতে চিবুতে বললেন, ‘না, না, না এ আর এমন কী! সামনে আরও ভালো খেলো, দেখবে দলের মালিক এই ফাঁকা চেকটাতে তখন সত্যি সত্যিই একটা সই করে দেবেন! তখন এক্কেবারে নগদ দুই লাখ! হে হে হে!’



    গোলরক্ষকের জন্য চক্ষুবিশেষজ্ঞ


    একের পর এক ম্যাচ হেরে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে দল, সবাই দোষ দিচ্ছে গোলরক্ষককে। বেচারা গোলরক্ষকও অন্য সবার মতো গোল খেতে খেতে নাজেহাল। মনটন খারাপ, তাই পার্কে বসে এক দিন হাওয়া খাচ্ছিল সে।

    হঠাৎ এক বুড়োমতো লোক এসে কাঁধে হাত রাখে তার, ‘বাবা, আমি তোমার অনেক খেলাই দেখেছি। আমার মনে হয়, তোমার এমন খারাপ পারফরম্যান্সে আমি তোমাকে সাহায্য করতে পারি।’

    খুশিতে ঝলমল করে ওঠে তার মুখ, বুকে আনন্দের ঢেউ। গা ঝাড়া দিয়ে সে বলে, ‘ওহ্‌, চাচা, অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আপনি নিশ্চয়ই ফুটবল কোচ?’

    বুড়ো ফোকলা দাঁতে হাসেন, বলেন, ‘নারে বাবা, আমি ফুটবল কোচ নই, চক্ষুবিশেষজ্ঞ!
     

    Users who are viewing this thread

  • Top