Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

  • অত্যন্ত দু:খের সাথে নির্জনমেলা পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো যাচ্ছে যে, কিছু অসাধু ব্যক্তি নির্জনমেলার অগ্রযাত্রায় প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে পূর্বের সকল ডাটাবেজ ধ্বংস করে দিয়েছে যা ফোরাম জগতে অত্যন্ত বিরল ঘটনা। সকল প্রকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা রাখা সত্বেও তারা এরকম ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড সংঘটিত করেছে। তাই আমরা আবার নুতনভাবে সবকিছু শুরু করছি। আশা করছি, যে সকল সদস্যবৃন্দ পূর্বেও আমাদের সাথে ছিলেন, তারা ভবিষ্যতেও আমাদের সাথে থাকবেন, আর নির্জনমেলার অগ্রনী ভূমিকায় অবদান রাখবেন। সবাইকে সাথে থাকার জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। বি:দ্র: সকল পুরাতন ও নুতন সদস্যদের আবারো ফোরামে নুতন করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। সেক্ষেত্রে পুরাতন সদস্যরা তাদের পুরাতন আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

Self-Made সবুজ বাঁশপাতি (1 Viewer)

  • Thread starter মরুভূমির জলদস্যু
  • Start date
  • Watchers 2
  • Tagged users None
মরুভূমির জলদস্যু

মরুভূমির জলদস্যু

Community Team
Elite Leader
Joined
Aug 2, 2018
Threads
126
Messages
7,671
Credits
52,331
Guitar
Statue Of Liberty
Helicopter
Television
Laptop Computer
Lollipop
সবুজ বাঁশপাতি



অন্যান্য ও আঞ্চলিক নাম : বাঁশপাতি, পত্রিঙ্গা, সুইচোরা, নরুন চোরা।
Common Name : Green Bee-eater
Binomial name : Merops Orientalis


সবুজ বাঁশপাতি বাংলাদেশের সহজ লভ্য একটি ছোট আকারের শিকারী পাখি। এই পাখি জলের ধারে বন-জঙ্গলে দলবদ্ধভাবে বসবাস করে। । ‘ট্রিউ ট্রিউ’ করে তীক্ষ্ম শব্দে ডাকে।


সবুজ বাঁশপাতির ইংরেজি নাম Green Bee-eater, তবে পোকামাকড় ধরে খেলেও এটি মূলত মৎস-শিকারী পাখি। ছোট ছোট মাছ ধরে এরা খায়। বিশেষ করে চাষের জমিতে যখন অল্প জল জমে সেখানে তাকা ছোট মাছ শিকার করে এরা দলবেঁধে।


সবুজ বাঁশপাতি লম্বায় প্রায় ৮ ইঞ্চির মতো হয়। এদের গড়ন ছিপছিপে । এদের গাত্রবর্ণ উজ্জ্বল সবুজ বলেই নাম হয়েছে “সবুজ বাঁশপাতি” । সবুজের মাঝে মস্তক ও পৃষ্ঠদেশের ঊর্ধাংশে সোনালি পালক রয়েছে এদের। ঠোট সুচালো ও কৃষ্ণবর্ণ এবং একটু বাঁকানো।


সবুজ বাঁশপাতির চোখের দুই পাশে 'কাজলরেখা' রয়েছে, যা ঘাড়ের সঙ্গে মিশে গেছে। পাখিটির চিবুক ও গলায় কাছে রয়েছে নীল ছটা আর গলার নিচে আছে মালার মতো কালো টান। সবুজ বাঁশপাতির লেজের মাঝ বরাবর দুটি পালক দুই ইঞ্চি পরিমাণ বর্ধিত। উজ্জ্বল সবুজ রং আর এই লেজের বর্ধিত পালকের কারণে খুব সহজেই এদের চেনা যায়।


পাখিরা সাধারণত গাছে তাদের বাসা বানায়, কিন্তু সবুজ বাঁশপাতি গাছে বাসা বাধতে জানে না। এরা নদীর কূলে বা খাড়া মাটির ঢালে গর্ত করে বাসা বানায়। গর্তের গভীরে স্ত্রী পাখিটি ধবধবে সাদা রংয়ের ৫ থেকে ৭টি ডিম পারে। স্ত্রী-পুরুষ দুজনেই ডিমে তা দেয়। ডিম থেকে বাচ্চা ফুটতে ২১ থেকে ২৭ দিন সময় লাগে।




ছবি তোলার স্থান : মশাখালী, গফরগাঁও, ময়মনসিংহ, বাংলাদেশ।
ছবি তোলার তারিখ : ২৫/১২/২০১৬ ইং
 

Users Who Are Viewing This Thread (Users: 0, Guests: 0)

Top