Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

  • অত্যন্ত দু:খের সাথে নির্জনমেলা পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো যাচ্ছে যে, কিছু অসাধু ব্যক্তি নির্জনমেলার অগ্রযাত্রায় প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে পূর্বের সকল ডাটাবেজ ধ্বংস করে দিয়েছে যা ফোরাম জগতে অত্যন্ত বিরল ঘটনা। সকল প্রকার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা রাখা সত্বেও তারা এরকম ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড সংঘটিত করেছে। তাই আমরা আবার নুতনভাবে সবকিছু শুরু করছি। আশা করছি, যে সকল সদস্যবৃন্দ পূর্বেও আমাদের সাথে ছিলেন, তারা ভবিষ্যতেও আমাদের সাথে থাকবেন, আর নির্জনমেলার অগ্রনী ভূমিকায় অবদান রাখবেন। সবাইকে সাথে থাকার জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। বি:দ্র: সকল পুরাতন ও নুতন সদস্যদের আবারো ফোরামে নুতন করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। সেক্ষেত্রে পুরাতন সদস্যরা তাদের পুরাতন আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

রোমান্টিক সেক্স

MECHANIX

MECHANIX

Board Senior Member
Elite Leader
Joined
Apr 12, 2018
Threads
640
Messages
11,718
Credits
159,576
Profile Music
Bikini
রোমান্টিক সেক্স – ১ by KamChoti

– কী রে?
– হম কি?
– কি মানে কি? শুরু কর। আর পারছি না।
– কি শুরু করবো?
জিয়নের হাসি দেখে দিশা প্রচন্ড রেগে গিয়ে বলল,
– শালা! গরম করে দিয়ে এখন বলছিস কি শুরু করবি?
দিশার মুখের ভাষা এক মুহূর্তে বদলে যাওয়ায় জিয়ন কেঁপে উঠলো। শুরু হলো এক উদ্যমতার লড়াই..

দিশাকে একবার দেখেই ভালো লেগে গিয়েছিল জিয়নের। জিয়ন আর্ট কলেজে পড়ে। সেকেন্ড ইয়ার। আর অন্যদিকে দিশা থার্ড ইয়ার। প্রথম আলাপ হয় ক্যান্টিনে। দিশা একটা টেবিলে এক বসে ছিল আর অন্যদিকে সব টেবিল ফুল ছিল। শেষে সেইখানেই এসে বসে,
– হাই! ক্যান আই সিট হেয়ার?
– ওকে।

এরপর শুরু হয় সাধারণ কথাবার্তা। দিশা বেশ সহজেই সবার সাথে মিশে যেতে পারে। অন্যদিকে জিয়নও নতুন বান্ধবী পেয়ে আনন্দে উৎফুল্লিত হয়ে গেল। শেষে কাউন্টারে গিয়ে বিল মেটাতে গেল দিশা। তখনও আলাপ অতটা গভীর হয়নি যে দুজনের বিল একসাথে কেউ দেবে। তাই দুজনের বিল আলাদা আলাদা। দিশা একটা শর্টস আর উপরে একটা হাফ হাতা টপ পরে ছিল। সিটে বসে নিজের শেষ বাইটটা দিতে দিতে খাবার হাতে ধরেই জিয়ন সামনে তাকিয়ে থেকে গেল। নিজে নিজেই মনে মনে এই বলে ফেললো,
– উফ কি সুন্দর!

দিশা ওর সুন্দর ফর্সা অনাবৃত হাঁটু আর হাত নিয়ে হাঁটতে হাঁটতে এগিয়ে গেল কাউন্টারে। শর্টস পরে থাকায় দিশার পশ্চাৎদেশের দোলনে জিয়নের বুক নাড়িয়ে দিলো। চুলগুলো একটা ক্লিপে বাঁধা। কাউন্টার থেকে বেরিয়ে সে এগিয়ে গেল। আর তখন দিশার বুকের সাইডভিউ পেলো জিয়ন।

কলেজ শেষে বাড়ি ফিরে খালি একটাই কথা মাথায় ঘুরছে জিয়নের.. দিশা.. দিশা আর দিশা.. দিশার একেবারে সাদা ধবধবে হাঁটু, থাই ও পা.. দিশার সহজে মিশে যাওয়ার প্রবৃত্তি.. দিশার এলোমেলো হাওয়ার মতো চুলগুলো.. আর দিশার বুকের অনুভূমিক দোলন.. দিশার পেছনে কোমরের নীচের স্পন্দন.. সবকিছু খালি জোঁকের মতো চেপে আছে জিয়নের মাথায়।

জিয়ন সাধারণত পর্ন দেখেই মাস্টারবেট করে প্রতিদিন। কারণ ও জানে মাস্টারবেট ভালো কাজ। শরীরের খিদে মেটানোর একটা সেফ উপায়। তাই সে নিজের শরীরকে ঘুমানোর আগে একটু সময় দেয়। আজকেও লাইটটা অফ করে, দরজা বন্ধ করে বিছানায় উঠলো। সিঙ্গেল জিয়নের মাথায় পোকা কেটেছে আজ.. দিশা নামক পোকা কেটে তার তীব্র সুন্দর বিষ যেন ছড়িয়ে দিয়েছে তার রক্তে..

জিয়ন প্যান্টটা নামিয়ে নিজের লিঙ্গে হাত দিলো.. চোখটা বন্ধ করলো.. বাকিটা ওর মস্তিষ্ক করে দিলো.. কত ভাবনা এলো মনের মধ্যে.. দিশা এগিয়ে আসছে.. চারিদিকে স্বপ্নালু পরিবেশ.. লাল নীল আলোর কুয়াশা.. মাঝে একটা বিছানায় মোলায়েম গদিতে শুয়ে আছে নগ্ন হয়ে জিয়ন আর কুয়াশার মাঝে আড়াল থেকে ধীরে ধীরে স্পষ্ট হয়ে আসছে দিশা.. তার পরনে খালি নূন্যতম অন্তর্বাস।

দিশা এগিয়ে আসছে.. লাল টকটকে ব্রাটা ওর সাদা ধবধবে শরীরের মাঝে যেন মুকুট পরিয়ে দিয়েছে.. সৌন্দর্য্যের রাজ্যে ডুবে গিয়েছে জিয়ন.. দিশার স্তন্যের লাল হয়ে থাকা দুটো বোঁটা বেরিয়ে এলো খোলা হাওয়ায়.. আরও কত কিছুই না ভাবছে জিয়নের অবচেতন মস্তিস্ক..

অন্যদিকে বাস্তবে জিয়নের চোখ একদম বন্ধ.. তার শিশ্নে তখন প্রবল রক্তের গতি। সে দাঁড়িয়ে লম্বা স্কেল হয়ে গেছে। তার উপরের লেগে থাকা চামড়ার ওপর চলছে তখন দুর্নিবার গতিতে জিয়নের হাতের আসা যাওয়া.. সে মত্ত খালি দিশাকে ভাবতে..

তার মস্তিস্ক নিজে নিজেই তাকে বানানো স্বপ্ন দেখাচ্ছে.. দিশার স্তন্য বেরিয়ে এসেছে.. দিশা এগিয়ে আসছে.. তার কালো কুচকুচে প্যান্টিটা ওর ফর্সা ত্বকের মাঝে যেন একটুকরো দরজা.. ওই দরজার পারেই যেন আছে অনেক সম্পত্তি.. অনেক অনুভূতির সমুদ্র.. স্বপ্নের লাল নীল মায়াবী আলোর মাঝেই দিশা মুহূর্তে কখন যেন এগিয়ে এসে পিঠের ভরে শুয়ে থাকা নগ্ন জিয়নের উপরে এসে বসেছে। জিয়নের পেটে শুয়ে সে তার সিল্কের মতো মোলায়েম স্তন্যদ্বয়কে জিয়নের দুই গালে ঠেকিয়ে দিলো। জিয়ন কেঁপে উঠেছে.. জিয়ন আর ভাবতে পারছে না.. জিয়নের হাতগুলো বাঁধা মনে হচ্ছে.. সে হাত নাড়াতে পারছে না..

কিন্তু তার ঐগুলো চাই.. তার গালের সংস্পর্শে থাকা একেবারে মখমলের মতো নরম দুটো থলথলে মাংসপিণ্ডের স্বাদ চাই ওর শরীর.. মুহূর্তেই কথাগুলো বুঝে নিয়েই দিশা ওর লাল বোঁটাগুলোর একটা জিয়নের মুখে ঢুকিয়ে দিলো জোরপূর্বক। হ্যাঁ। এটাই তো চাইছিল সে। লাল হয়ে থাকা বোঁটাটা একটা ছোট মুখের খোঁজ পেলো সে। জিয়ন আনন্দে আত্মহারা। যেন সে অজ্ঞান হয়ে যাবে। লাল মুখটা জিয়নের লালায় সেজে উঠছে মুখের ভেতরে। একেবারে উঁচু ঢিবির মতো লাল মুখটার ঠিক চারপাশে কয়েকটা কাঁটা যেন। ছোট ছোট কয়েকটা উঁচু হয়ে থাকা ত্বক। ওগুলোই শুষে খাচ্ছে জিয়ন।

জিয়নের শিশ্ন আর পারছে না সহ্য করতে.. গতি প্রচন্ড বেড়ে গেছে বাস্তবে.. তার উপরের চামড়ার ত্বকে যেন ঘর্ষণের ফলে এবার আগুন লেগে যাবে.. কিন্তু সেই খেয়াল নেই জিয়নের.. জিয়নের স্বপ্নে জীবনকে এখন দিশা ওর অপূর্ব সুন্দর থলথলে উঁচু ঢিবির মতো সাদা স্তন্যদ্বয়ের মধ্যে ডানদিকেরটার রহস্য খুলে দিচ্ছে.. জিয়নের কপালে ছেয়ে আছে দিশার চুলগুলো.. জিয়নের কাম এবার সর্বোচ্চ সীমায় চলে গেছে..

ঐদিকে স্বপ্নে দিশা জিয়নের পেটে বসে নিজের টুকটুকে ফর্সা বগলের মধ্যে জিয়নের জিভগুলোকে দিয়ে চাষ করাচ্ছে.. জিয়ন ধীরে ধীরে বুকের খাঁজের মাঝখান হয়ে সোজা কালো কুচকুচে প্যান্টিটার কাছে এসে থামলো.. সারা শরীরের স্বাদ নিতে নিতে ওর জিভটা এবার ক্লান্ত জয়ে গেছে.. সে বিশ্রাম চাইছে.. এই সুযোগে দিশা ওর স্বপ্নে নিজের কালো দরজাটা একটু পেটের দিকে টেনে দেখালো জিয়নকে। জিয়ন এক মুহূর্তেই ওর জিভের ক্লান্তি ভুলে গেল। ভেতরে থাকা আবছায়া আলোর মধ্যেও যেন অপার সৌন্দর্য মুখ তুলে ওর দিকে তাকালো.. কেমন একটা রিমঝিম করা গন্ধ এসে ওর নাকে লাগলো যেটা মাতাল করে দিলো জিয়নকে..

জিয়ন এবার মুখ দিয়ে প্যান্টিটা খুলে টেনে নামাতে শুরু করলো.. আর বাস্তবে তার শিশ্নে চামড়াটা যেন এবার ছিঁড়ে যাবে.. প্রচন্ড বল প্রয়োগ করে ফেলেছে সে.. কিন্তু জিয়ন স্বর্গের খোঁজ পেয়েছে। সে আর থামবে না। তার মাথায় কামলীলা চেপেছে। সে আর থামতে পারছে না নিজেকে। স্বপ্নটা খুব সত্যি মনে হচ্ছে জিয়নকে। যেন আসলেই দিশা স্বপ্নসুন্দরী ওর পিঠে ওপর খোলা স্তন্য নিয়ে চেপে আছে মখমলে ত্বকের শরীর নিয়ে।

স্বপ্ন এবার দ্রুত গতিতে এগোতে লাগলো। দিশা এবার গদিময় বিছানায় বসে আছে। মুখে স্ফীত হাসি। আর দুজনেরই চোখে খিদে। আদিম খিদে। একে ওপরের ওপর হামলা পড়ার খিদে। স্বপ্ন কতই না রঙীন হয়!

দিশার পেটের ঠিক নিচে থেকে কালো কুচকুচে প্যান্টিটাকে মুখ দিয়ে চেপে ধরলো জিয়ন। ঠোঁটে চেপেই প্যান্টিটাকে ধীরে ধীরে টেনে টেনে নামিয়ে নিলো সে। দিশা তখন তাকে একবিন্দু সাহায্য করেনি। যেন এই একার কাজেই অপার আনন্দ পেলো জিয়ন।

জিয়নের সামনে এখন লাল আর বাদামি এর গ্রেডিয়েন্টের এক সাফসুতরো জায়গা.. দিশার যোনি মুখ হাঁ করে জিয়নকে গিলে নেওয়ার জন্য তৈরি হয়ে আছে। কামের দ্রবণে সে আর্দ্র হয়ে আছে। সেই কামগন্ধ মন দিয়ে নাকে নিলো জিয়ন। উফ! মাতাল করে দিচ্ছে যেন সেই কাম গন্ধ। স্বপ্নালু সেই পরিবেশে আর দেরি না করে জিয়ন নিজের স্বপ্নে সেই অমৃত সুধা পান করতে শুরু করে দিলো।

একেবারে হামলা পড়ার মতো উৎসাহে, দিশার দু পা দুই হাতে ধরে, কিছুটা বিস্তৃত করে হাঁ হয়ে থাকা দিশার লাল বাদামি রঙের মিশ্রনের যোনিতে মুখ দিলো। এ যেন এক অমৃতের সমুদ্র। দিশার যোনির ভেতরের উষ্ণতা আর কামের গন্ধে মাতাল হয়ে সেই অমৃতের সমুদ্র মন্থনে সারা জীবন পার করে দিতে পারে জিয়ন। মাথা ঝিমঝিম করছে জিয়নের। কানে পরিতৃপ্তির আওয়াজ আসছে দিশার মুখ থেকে। দুজনেই কামের কামড়ে কাহিল।

দিশার যোনির ভেতরে মিনিট খানেক জিভ দিয়ে হামলা চালানোর পরে আর কোনোমতেই নিজেকে সামলাতে না পেরে সোজা দাঁড়িয়ে গিয়েই জিয়ন ওর দাঁড়ানো শিশ্নকে একদম হাতে করে নিয়ে দিশার আবছায়া যোনির গাঢ় অন্ধকারে, উষ্ণ কাম দ্রবণে ভেজা আর্দ্র মাংসল সমুদ্রের মাঝে প্রবেশ করিয়ে দিলো। দিশার মুখে তখন আওয়াজ,
– উঃ! আঃ! আহ! জিয়ন! মাই লাভ!

এরপরে জানতে চান কী কী হলো, কিভাবে হলো? তাহলে সঙ্গে থাকুন কমেন্ট করে। আমার প্রথম প্রচেষ্টা, কেমন লাগলো উৎসাহ দিয়ে জানালে খুব ভালো হয়। চেষ্টা করবো বাংলা ইরোটিক সাহিত্যকে একটি অন্য ডাইনেনশন দেওয়ার জন্য।
 
Top