What's new
Nirjonmela Desi Forum

Talk about the things that matter to you! Wanting to join the rest of our members? Feel free to sign up today and gain full access!

    MOHAKAAL

    MOHAKAAL

    Board Senior Member
    Elite Leader
    Joined
    Mar 2, 2018
    Threads
    1,688
    Messages
    14,564
    Credits
    1,113,279
    Sandwich
    Profile Music
    French Fries
    ভাই বোনের প্রেমের সুত্রপাত ১ by shopon

    নোয়াখালী জেলার এক ছোট গ্রামে থাকি আমরা। ৩ রুমের ছোট বাসায় আমি বাবা-মা আর আমার ৪ বছরের ছোট বোন এই কয়েকজন থাকি। আজ থেকে প্রায় ৮ বছর আগে যখন আমার বয়স ১৩/১৪ বছর তখন আমার দাদা মারা যান, প্রায় ষাটোর্ধ দাদি তখন থেকেই আমাদের বাড়িতেই থাকেন, বয়স অনেক হয়েছে তাই ঘরের কাজ কিছু করতে পারেন না, চোখেও কম দেখেন, নানা রোগে আক্রান্ত, প্রতি রাতেই ৮/১০ টা ওষুধ খেয়ে ঘুমান, সারাক্ষন পুজা-আর্চনা নিয়েই তার দিন কাটে। অনেক আগের দিনের মানুষ বলে দাদি কখনো ব্লাউজ পড়ত না, তাই তার বয়সের সাথে জীর্ন শরীর আর স্তন গুলো ছোট বেলা থেকেই আমরা চোখের সামনে দেখেই অভ্যস্ত।

    দাদি এ বাড়িতে আসার পর থেকে আমাদের পরিবারের সবার মধ্যমনি হয়ে গেলেন। সারাক্ষন আমাদের দুই ভাইবোনকে নিয়েই তার সময় কাটে। রাতে ছোটবোন তুলি বাবা মায়ের কাছেই ঘুমায় আর আমি দাদির সাথে একই রুমে কিন্তু আলাদা বিছানায় ঘুমাই। কিন্তু বিছানা আলাদা হলেও বেশীর ভাগ রাতেই দাদির বিছানাতেই ঘুমাতাম, দাদি মাথায় হাত বুলিয়ে দিত, আমি তার জীর্ন স্তন গুলো নিয়ে খেলতে খেলতে ঘুমিয়ে যেতাম। অনেক কড়া ঘুমের অষুধ খেতেন বলে দাদির ঘুম ছিল খুব গভীর। আমার দেখা দেখি আমার ছোট বোন তুলিও দাদির স্ত্যন নিয়ে খেলত, এটা আমাদের পরিবারের কেউ খারাপ চোখে দেখত না। যেন একটা স্বাভাবিক ব্যাপার ছিল।

    দেখতে দেখতে তুলি বড় হয়ে গেল, সে আর বাবা মায়ের সাথে না থেকে দাদির সাথে ঘুমানো শুরু করলো, আর আমার স্থান হলো অন্য রুমে। কিন্তু তার পরেও মাঝে মাঝে রাতে দাদির পাশে গিয়ে ঘুমাতাম। দাদির এক পাশে আমি আর এক পাশে তুলি ঘুমাতো।

    এভাবেই চলছিলো। আমি যখন অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র, তুলি তখন সবে মাত্র কলেজে উঠেছে। বেশীর ভাগ দিনই আমি অনেক রাত পর্যন্ত পড়াশুনা করতাম। তুলি পড়াশুনা করে দাদির পাশে ঘুমিয়ে পড়লে আরো প্রায় ১/২ ঘন্টা পর আমি মাঝে মাঝে দাদির অপর পাশে শুয়ে পরতাম, কিছুক্ষন তার স্ত্যন নিয়ে খেলতাম, তারপর নিজের রুমে এসে ঘুমিয়ে পড়তাম, কখনো কখনো সেখানেই ঘুমাতাম। এমনই এক রাতে দাদির পাশে শুয়ে তাকে জড়িয়ে ধরে আছি, হঠাত তুলি ঘুমের মধ্যে পাশ ফিরে দাদির গায়ে একটা হাত রাখল, আর দাদিকে জড়িয়ে রাখা আমার হাতটা তুলির বুকে স্প্র্শ লাগলো ।

    শরীরে একটা শিহরণ খেলে গেল। তুলির দিকে কোন দিন বড় ভাই হিসেবে খারাপ নজর দেইনি। কিন্তু সেদিনের সেই স্পর্শে কি যে হলো, আমি হাত সরিয়ে নিয়ে নিজের রুমে চলে এলাম, কিন্তু ঘুমাতে পারলাম না। পরের দিন আবার গেলাম। দাদি আর তুলি দুজনই ঘুমিয়ে আছে নিশ্চিত হয়ে আলতো করে তুলির বুকে হাত দিলাম।

    সেই অনুভুতি বর্ননা করার মতো না।এরপর থেকে দাদির পাশে শুয়ে তার গায়ের উপর দিয়ে তুলির বুকে হাত দিয়ে আলতো করে চাপ দিতাম, সে একটু নড়লেই হাত সরিয়ে নিতাম। এভাবে প্রায় দুই তিন ঘন্টা চলতো, শেষ রাতে নিজের রুমে এসে হস্তমোইথুন করে ঘুমিয়ে পড়তাম। এটা আমার নিয়মিত রূটিন হয়ে গেল। ক্রমে আমার সাহস বেড়ে গেল, আমি দাদির পাশে না শুয়ে সরাসরি তুলির পাশে শুয়া শুরু করলাম আর তার বুকে হাত দেয়ার পাশাপাশি তার গাল ঠোট বা পেটে কিস করাও শুরু করলাম, যখনই তুলি একটু নড়ে উঠতো বা তার নি:স্বাশ হাল্কা হতো তখনই আমি সে রুম থেকে পালিয়ে আসতাম।

    এভাবে একদিন আমি তুলির পাশে শুয়ে তার জামার ভেতর সবে হাত ঢুকিয়েছি, হঠাত তুলি জেগে ঊঠলো, আর শোয়া থেকে বসে পড়লো, আমি দ্রুত হাত সরিয়ে নিলাম, কারো মুখে কোন কথা নেই।আমি তারাতারি রুম থেকে বেড়িয়ে নিজের রুমে চলে গেলাম। খুব লজ্জা পেয়েছিলাম সেদিন।সারারাত ঘুমাতে পারলাম না। লজ্জায় পরের দিন পারতপক্ষে তুলির সামনে পড়লাম না। ৩/৪ দিন তুলির সাথে মোটামূটি কোন কথাই হয়নি। কিন্তু ৩/৪ দিন পর আবার মাথায় ভূত চাপলো, আবার রাতে সে রুমে গেলাম, আগের চেয়ে আরো সাবধানে তুলির জামার ভেতরে হাত দিয়ে ওর বুক স্পর্শ করলাম, কিছুক্ষন ওর দুধ টিপে আবার নিজের ঘরে চলে আসলাম।আসলে এটা একটা নেশার মতো। ২/৩ দিন তুলির বুক না ছুয়ে বা তাকে কিস না করে থাকতে পারতাম না।

    এভাবে আরেকদিন তুলির জামার ভেতর আমার ডান হাত আর ওর ঠোটে কেবল ঠোট রেখেছি, হঠাত তুলি ধরফর করে জেগে উঠে বসে পড়লো, আমি দ্রুত জামার ভেতর থেকে হাত বের করে নিলেও ধরা পড়ে গেলাম। তুলি রাগের সাথে কিন্তু ফিস ফিস করে বললো ভাইয়া তুই এগুলো কি করছিস? তোর কি মাথা খারাপ হয়ে গেল? কাল মা কে সব বলে দেব। আমি লজ্জায় কিছু বলতে পারলাম না, কোন কথা না বলে সে রুম থেকে চলে এলাম। পরেরদিন তুলি যদিও কাউকে কিছু বলেনি, তবুও ওর সামনে যেতে পারলাম না।

    এভাবে ৩/৪ দিন কেটে গেল, তারপর আবার আগের নেশা, আবার সেই আগের কাজ।কিন্তু ধীরে ধীরে আরো বেপরোয়া হয়ে গেলাম, তুলি না জাগা পর্যন্ত তার বুক টিপতাম আর চুমু খেতাম, সে জেগে উঠলে চলে আসতাম। মাঝে মাঝে সে জেগে উঠলেও থামতাম না, যতোক্ষন না সে মানা করতো।

    ধীরে অবস্থা এমন দাড়ালো যে ঐ রুমে ঢুকে সরাসরি তুলির জামার ভিতর হাত ঢুকিয়ে তাকে কিস করা শুরু করতাম, সে জেগে উঠে বিরক্ত হতো, বাধা দিত তারপর ছাড়তাম। কোন কোন দিন সে বাধা দিলেও ছাড়তাম না কিন্তু যখন জোড়ে কথা বলে উঠতো তখন চলে আসতাম কারন পাশেই দাদি ঘুমাতো। তুলির স্পর্শ ছাড়া যেন থাকতেই পারতাম না। তার গায়ের ঘ্রান ছাড়া নেশা কাটতো না। কিন্তু তুলি খুব বিরক্ত হতো আর মা কে বলে দেয়ার ভয় দেখাতো। কিন্তু আমি চালিয়ে যেতে লাগলাম।

    এভাবে একদিন আনুমানিক রাত ২ টার সময় তুলির পাশে শুয়ে কেবল তার ঠোট আমার মুখে নিয়েছি, তুলি তখনি জেগে উঠে বললো ভাইয়া, ছাড় তো। আমি তাকে না ছেড়ে বরং তাকে আর ভালোভাবে জড়িয়ে ধরে প্রায় তার গায়ের উপর উঠে পড়লাম আর তার বুকে মুখ গুজে দিলাম। তুলি প্রায় ধাক্কা দিয়ে আমাকে সরিয়ে দিয়ে একটু জোড়ের সাথেই বললো ভাইয়া কি করছিস, ছাড় আমাকে। সে এতো জোড়ে কথা বলায় আমি একটু ভড়কে গেলাম। সোজা নিজের রুমে চলে এসে লাইট অফ করে নিজের বিছানায় শুয়ে পড়লাম।

    কিছুক্ষন পর তুলি আমার আসল, আমার রুমের লাইট জ্বেলে দিয়ে সে আমার বিছানায় বসলো, তার পর বললো ভাইয়া তোর কি হয়েছে বলতো? তুই রোজ রোজ এগুলো কি শুরু করেছিস? তুই না আমার ভাই? কেউ জানলে আমাদের কি অবস্থা হবে ভেবে দেখেছিস? বাইড়ের কেউ যদি নাও জানে শুধু বাবা-মা ও যদি জানে তবুও ব্যাপারটা কেমন হবে ভেবে দেখেছিস? আমাদের এই শান্তির সংসারে আজীবনের জন্য একটা অশান্তি শুরু হবে না কি? আমি কোন কথা বলতে পারলাম না। তুলি কিছুক্ষন আমার দিকে চুপচাপ তাকিয়ে থেকে, উঠে লাইট অফ করে আমার রুম থেকে চলে গেল। আমি অনেকক্ষন তুলির বলা কথা গুলো নিয়ে ভাবলাম, নিজের প্রতি খুব ঘৃনা হতে লাগলো, মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলাম আর কখনো ঐ রুমে যাব না।

    সঙ্গে থাকুন …
     

    Users who are viewing this thread

  • Top